ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েও, ফের পতনের ধারায় পুঁজিবাজার

বৃহস্পতিবার, মে ১২, ২০২২

ঢাকা: ঈদের পর টানা তিন কর্মদিবসে বাড়তে থাকার পর এবার টানা দুই দিন কমল লেনদেন। তা আবার নেমে এসেছে এক হাজার কোটি টাকার নিচে।

এক দিনেই কমল আরও প্রায় আড়াই কোম্পানির দর। এর মধ্যে দর পতনের সর্বোচ্চ সীমায় লেনদেন হওয়া কোম্পানির সংখ্যা আগের তুলনায় কিছুটা কম দেখা গেছে।

সপ্তাহের প্রথম দুই কর্মদিবসে সূচক ৫৪ পয়েন্ট বাড়ার পর টানা তিন দিনে সূচক কমল ১৩২ পয়েন্ট।

এর মধ্যে মঙ্গলবার লেনদেনের অর্ধেকটা সময় সূচক বেড়ে লেনদেন হতে থাকলেও শেষ আধাঘণ্টায় হঠাৎ সূচক নেমে আসতে থাকে। পরের দিনও একই প্রবণতা দেখা যায়। শেষ আড়াই ঘণ্টায় সূচকের পতন হয় আরও বেশি।

বৃহস্পতিবারের প্রবণতা ছিল এ থেকে ভিন্ন। লেনদেনের শুরুতেই সূচক অনেকটাই কমে গেলেও পরে সেখান থেকে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা দেখা যায়। এরপর আবার পড়ে।

প্রথম আধাঘণ্টায় সূচক পড়ে যায় ৩৭ পয়েন্ট। তবে পরের ২৫ মিনিটে সেখান থেকে ৪৩ পয়েন্ট বেড়ে সূচকে যোগ হয় ৬ পয়েন্ট।

এরপর সূচক আবার পড়ে দুপুর ১২টার দিকে আগের দিনের চেয়ে বেড়ে লেনদেন হতে থাকে। পরে সেখান থেকে আবার পড়ে।

শেষ পর্যন্ত আগের দিনের চেয়ে ২৬ পয়েন্ট কমে সূচকের অবস্থান দাঁড়িয়েছে ৬ হাজার ৫৬৫ পয়েন্ট।

সূচকের অবস্থান নেমে গেল গত ১৯ এপ্রিলের পর সর্বনিম্ন অবস্থানে। সেদিন সূচক ছিল ৬ হাজার ৫৩০ পয়েন্ট।

ঈদের আগে থেকে পুঁজিবাজার ঘুরে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েও আবার পতনের ধারায় ফিরে যাওয়ার মধ্য দিয়ে বাজার নিয়ে যে আস্থাহীনতা তার পাশাপাশি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে নানা গুজবের প্রভাব কারণ হিসেবে উঠে এসেছে। এ ছাড়াও একটি বড় বিনিয়োগ প্রতিষ্ঠানে বন্ধ হয়ে যাওয়া বিও হিসাব থেকে শেয়ার বিক্রির বিষয়টি সামনে এসেছে।

এসব ঘটনায় সাধারণ বিনিয়োগকারীদের মধ্যে হতাশা পরিণত হয়েছে ক্ষোভে।

পুঁজিবাজারের প্রবণতা নিয়ে ট্রেজার সিকিউরিটিজের চিফ অপারেটিং অফিসার মোস্তফা মাহবুব উল্লাহ বলেন, ‘লেনদেন তলানীতে নামার পর কাঙ্ক্ষিত টার্নওভার ছিল ৮০০ থেকে ১২০০ কোটি টাকা, যেটা দুই দিন আগে ছাড়িয়েছিল। এখন আবার সেটা নিচে নেমে গেছে।

এর কারণ মার্কেটের নতুন ফান্ড ইনজেক্ট হচ্ছে না। সেল প্রেসারের কারণে টার্নওভার বেশি দেখাচ্ছে কিন্তু বায়ার দাঁড়াচ্ছে না।

তিনি বলেন, ‘শ্রীলঙ্কায় অর্থনৈতিক বিপর্যয় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে একটা নেতিবাচক প্রভাব ফেলেছে। বিনিয়োগকারীদের আস্থা ফেরাতে প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ। বিভিন্ন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের মধ্যে এই সমন্বয়টা হতে হবে।

প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের ভূমিকায় নাখোশ মাহবুব। বলেন, ‘অতীতে দেখা গেছে, যখনই বাজার নিম্নমুখী হয় তখনই প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা নিজেদেরকে গুটিয়ে নেন আরেকটু ভালো সুযোগ পাওয়ার জন্য। কিন্তু এটি বাজারকে স্থিতিশীল হতে দিচ্ছে না।