আমরা দু’জনই বাবা-মা হচ্ছি: তামিমা

সোমবার, জানুয়ারি ২৪, ২০২২

ঢাকা : অন্যের স্ত্রীকে বিয়ে করা ও ব্যভিচারের অভিযোগে দায়ের করা মামলায় ক্রিকেটার নাসির হোসেন, তামিমা সুলতানা তাম্মি ও তামিমার মা সুমি আক্তারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের শুনানি শেষ হয়েছে। এ বিষয়ে আদেশ দেওয়ার জন্য আগামী ৯ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেছেন আদালত। সোমবার (২৪ জানুয়ারি) এ দিন ধার্য করেন ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর হাকিম তোফাজ্জল হোসেন। জামিনে থাকা অবস্থায় আজ আদালতে হাজিরা দেওয়ার পর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তামিমা। এ সময় তার সঙ্গেই ছিলেন ক্রিকেটার নাসির হোসেন।

বিয়ে সংশ্লিষ্ট মামলা নিষ্পত্তির আগেই তামিমা মা হচ্ছেন এমন খবর আগেই প্রকাশ হয়েছিল। তবে সে সময়ে প্রকাশ্যে নাসির-তামিমার স্পষ্ট কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি। এবার এ বিষয়ে মুখ খুলেছেন তামিমা সুলতানা নিজেই। উপস্থিত সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘হ্যাঁ, কথাটা সত্যি, আলহামদুলিল্লাহ্, আমরা দু’জনই বাবা-মা হচ্ছি। সবাই আমাদের জন্য দোয়া করবেন।

আজ আদালতে আসামিপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী কাজী নজিবুল্লাহ হিরু ও বাদীপক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী ইশরাত হাসান। গত ৩১ অক্টোবর নাসির, তামিমা এবং তামিমার মা সুমি বেগম জামিন পান।

উল্লেখ্য, যথাযথভাবে তালাক না দেওয়ায় তামিমা সুলতানা এখনও ব্যবসায়ী রাকিব হাসানের স্ত্রী বলে তদন্ত প্রতিবেদনে উঠে আসে। এ পরিস্থিতিতে নাসির-তামিমার বিয়ে বৈধ হিসেবে গৃহীত হবে না বলে ওই প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। গত ৩০ সেপ্টেম্বর সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদনটি আদালতে দাখিল করে পিবিআই। ওই প্রতিবেদন আমলে নিয়ে বিচারক তাদের আদালতে উপস্থিত হওয়ার জন্য আজকের দিন (৩১ অক্টোবর) ধার্য করেছিলেন।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ডিভোর্স পেপার ছাড়াই অন্যের স্ত্রীকে বিয়ে করার অভিযোগে ক্রিকেটার নাসির হোসেন ও তামিমা সুলতানা তাম্মির বিরুদ্ধে করা মামলাটি পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত। ঢাকা মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীমের আদালতে তামিমার সাবেক স্বামী রাকিব হাসান বাদী হয়ে এ মামলা করেন।

রাকিবের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান ওই সময় বলেছিলেন, ২০১১ সালের ২৬ ফেব্রুয়ারি বাদীর (রাকিব হাসান) সঙ্গে ১ নম্বর আসামি তামিমা সুলতানার ইসলামি শরিয়ত মোতাবেক তিন লাখ এক টাকা দেনমোহরে বিয়ে এবং রেজিস্ট্রি হয়। বিয়ের পর থেকে তারা স্বামী-স্ত্রী হিসেবে সংসার করতে থাকেন। তাদের তোবা হাসান নামে এক মেয়ে রয়েছে; যার বর্তমান বয়স ৮ বছর।