বুর্কিনা ফাসোর গির্জায় বন্দুকধারীদের হামলা, নিহত ৬

রবিবার, মে ১২, ২০১৯

ঢাকা: পশ্চিম আফ্রিকার দেশ বুর্কিনা ফাসোর একটি গির্জায় বন্দুকধারীদের হামলায় কমপক্ষে ৬ জন নিহত হয়েছেন।

স্থানীয় সময় রবিবার (১২ মে) দেশটির ডাবলো শহরে ৭টি মোটরসাইকেলে করে হামলাকারীরা গির্জায় প্রবেশ করে এ হামলা চালায়।

নিহতদের মধ্যে এক যাজক ও তার ২ পুত্র এবং প্রার্থনার জন্য আসা ৩ জন রয়েছেন। খবর বিসিবির।

ওই ৭টি মোটরসাইকেলে মোট কতজন হামলায় অংশ নেয় তা এখনও জানা যায়নি। হামলার দায়ও এখন পর্যন্ত কেউ স্বীকার করেনি।

এদিকে ডাকলোর মেয়র উসমানি জোঙ্গো বার্তা সংস্থা এএফপিকে জানিয়েছেন, সশস্ত্র হামলাকারীরা গির্জায় প্রবেশের পর জমায়েত হওয়া লোকজন পালাচ্ছিল। এসময় তাদের ওপর গুলিবর্ষণ শুরু হয়।

তিনি আরও জানান, এ হামলার পর শহরজুড়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়েছে। জনগণ দ্রুত ঘরে ফিরে যাচ্ছে। দোকানপাট শপিং মলগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। মূলত শহরটি এখন ভূতের নগরীতে পরিণত হয়েছে।

আল-কায়দা ও ইসলামিক স্টেট (আইএস) এর সমর্থনপুষ্ট স্থানীয় আনসারুল ইসলাম নামে জঙ্গি সংগঠন এ হামলা চালাতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

এর আগে গেল মাসে দেশটি সিলগাডজি শহরে এক প্রোটেস্টাইন গির্জায় হামলা চালিয়ে অন্তত ৬ জনকে হত্যা করা হয়। এর আগে গত এপ্রিল পার্শ্ববর্তী একটি গ্রামে ক্যাথলিক গির্জায় হামলা চালিয়ে ৪ জনকে হত্যা করে বন্দুকধারীরা।

২০১৬ সালের জানুয়ারিতে বুর্কিনা ফাসোর রাজধানী উয়াগাদুগুর একটি হোটেলে মুখোশধারী বন্দুকধারীদের হামলায় অন্তত ২০ জন নিহত হন।

উল্লেখ্য, আফ্রিকার সবচেয়ে দরিদ্র দেশগুলির একটি বুর্কিনা ফাসো। ২ লাখ ৭৪ হাজার ২০০ বর্গ কিলোমিটার আয়তনের দেশটিতে প্রায় ২ কোটি ৭ হাজার মানুষের বসবাস (২০১৭ সালের আদমশুমারি আনুযায়ী)। প্রতি বছর দেশটির হাজার হাজার লোক পার্শ্ববর্তী দেশগুলিতে যেমন ঘানা বা আইভরি কোস্টে কাজ খুঁজতে বিশেষ করে মৌসুমী কৃষিকাজের জন্য পাড়ি জমায়।

১৯৬০ সালে স্বাধীনতা লাভের পর দেশটিতে বারংবার সামরিক অভ্যুথান ঘটে এবং সামরিক শাসন চলে। ১৯৯১ সালে নতুন সংবিধান পাস হবার পর দেশটিতে গণতন্ত্রের যাত্রা শুরু হয়।

প্রতি মুহুর্তের খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিন