কর্মীদের পুরষ্কার প্রদান প্রতিষ্ঠানের কতটা সুফল বয়ে আনে?

রবিবার, মে ৫, ২০১৯

লাইফস্টাইল ডেস্ক : কর্মক্ষেত্রে ভালো কাজের স্বীকৃতি হিসেবে যুক্তরাজ্যের অনেক অফিসে কর্মীদের টিপস দেওয়ার প্রচলন শুরু করেছেন। এর মাধ্যমে তারা কর্মীদের থেকে ভালো সাড়াও পেয়েছেন।

এ ব্যাপারে যুক্তরাজ্যে বসবাসকারী এবং সেখানকার একটি প্রতিষ্ঠানে কর্মরত বেকি তর্নটন বলেন, ‘অফিসে কেউ যদি সত্যিই ভাল কিছু করে থাকে তাহলে আমরা তাকে সাধারণত দুই থেকে পাঁচ পাউন্ড কিংবা তারও কিছু বেশি টিপস দিয়ে থাকি।’

তার মতে, আপনি যদি কারও কাজ সত্যিই পছন্দ করে থাকেন তাহলে সেটা প্রকাশের স্পষ্ট উপায় হতে পারে এই টিপস দেওয়া।

কর্মীদের মধ্যে টিপস দেওয়ার কারণে বিভিন্ন ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠানে ইতিবাচক পরিবর্তন লক্ষ্য করা যাচ্ছে।

মূলত যেসব প্রতিষ্ঠানে ভাল কাজের জন্য কর্মীদের অল্প পরিমাণে হলেও টিপস দেওয়ার মতো ক্ষমতা ও বাজেট রয়েছে সেখানেই প্রবৃদ্ধি চোখে পড়েছে।

এই পরিকল্পনার পেছনে জড়িত প্রধান দুটি প্রতিষ্ঠান সম্প্রতি বিবিসি রেডিও ফাইভের সরাসরি সম্প্রচারিত ‘ওয়েক আপ টু মানি’ নামের একটি অনুষ্ঠানে আসে।

সেখানে প্রতিষ্ঠান দুটোর কর্ণধাররা জানিয়েছেন যে, কর্মীদের ছোট ছোট নগদ পুরষ্কার প্রদানের ক্ষমতা দেওয়ার কারণে যুক্তরাজ্যের ব্যবসায় বড় ধরণের প্রবৃদ্ধি দেখা গেছে।

যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক ফার্ম বোনাসলি বলেছে যে, গত ১২ মাসে ব্রিটেনের গ্রাহকদের মধ্যে তাদের স্কিম ৭৫ শতাংশ বেড়ে গেছে।

যার মানে হল, এখন ২৫০টি যুক্তরাজ্য-ভিত্তিক সংস্থা তাদের স্কিম ব্যবহার করছে এবং এর অন্যতম কারণ ১০ হাজারের মতো কর্মচারীকে তারা পুরস্কৃত করেছে।

রিওয়ার্ড গেটওয়ে রেডিও ফাইভকে জানিয়েছে, সহকর্মীদের অল্প পরিমাণে নগদ অর্থ প্রদানের ক্ষমতা দেয়ার পর যুক্তরাজ্যে ব্যবসার পরিমাণ ১০০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে।

বেকি থ্রনটন এর বক্তব্য, ‘প্রতিক্রিয়া জানানোর জন্য এটি একটি দুর্দান্ত উপায়, কারো কাজের প্রশংসা করার জন্য একে সবচেয়ে ইতিবাচক উপায় বলে মনে হয়।’

তিনি বলেন, ‘আমি আমার টিপসের অর্থ জমাতে থাকি। যখন সেটা ১০০ পাউন্ড ছাড়িয়ে যায়, তখন সেই টাকাটা তুলে আমি নিজেকে খুশি করতে কিছু একটা করি।’

তথ্যসূত্র: বিবিসি