সিইসিকে মোশাররফ : পদত্যাগ করে প্রমাণ করুন আপনার বিবেক আছে

রবিবার, মার্চ ১০, ২০১৯

ঢাকা : সিইসি স্বীকার করেছেন ২৯ ডিসেম্বর রাতে ভোটের বাক্স ভর্তি করে রাখা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

ইভিএম ব্যবস্থা হলে আর রাতে ভোট ডাকাতি হবে না সিইসির এমন কথার প্রতি উত্তরে তিনি বলেন, এ কথার মাধ্যমে তিনি স্বীকার করলেন ২৯ ডিসেম্বর রাতে ভোটের বাক্স ভর্তি করে রাখা হয়েছে।

আজ রোববার (১০ মার্চ) বেলা ১২টার দিকে জাতীয় প্রেসক্লাবে ‘সংগ্রাম নারী ও জীবন’ নিয়ে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি একথা বলেন।

খন্দকার মোশাররফ বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন যখন স্বীকার করেছেন ২৯ ডিসেম্বর ভোটের বাক্স ভর্তি হয়েছে। আমাদের দাবি যে, কোন ভোট হয় নাই। তা মেনে নিয়ে পূর্ণ নির্বাচনের ব্যবস্থা করুন। অথবা পদত্যাগ করে প্রমাণ করুন আপনার বিবেক আছে।’

তিনি বলেন, ‘আমরা অন্ধকার যুগে প্রবেশ করেছি, যেখানে মানুষের কথা বলার কোন অধিকার নেই। বাংলাদেশের সকল মানুষ আজ অধিকার থেকে বঞ্চিত। দেশে গণতান্ত্রিক পরিবেশ তৈরি করতে হবে। তাহলে সকল মানুষ তাদের অধিকার ফিরে পাবে। মানবাধিকার ফিরে পাবে। আর তাদের ভোটাধিকার পাবে।’

তিনি আরও বলেন, শুধুমাত্র নারীদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করলে হবে না। এদেশে গণতন্ত্রের পরিবেশ সৃষ্টি করতে হবে। তাহলে নারীরা এগিয়ে যেতে পারবে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ছাড়া নারীরা এগিয়ে যেতে পারবে না। বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা ছাড়া এদেশের গণতন্ত্র মুক্ত করা যাবে না। তিনি হলেন গণতন্ত্রের মা। তার নেতৃত্বেই এদেশের গণতন্ত্র মুক্ত করতে হবে। মানুষের অধিকার পুনরুদ্ধার করতে হবে। মানুষের অধিকার না থাকলে নারীর অধিকার কোথা থেকে আসবে। নারী পুরুষ সকলকে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের জন্য ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করার জন্য বাংলাদেশের সকলকে সমানভাবে অবদান রাখতে হবে।

বিএনপির এই নেতা বলেন, ৩০ ডিসেম্বর নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল সেখানে ২৯ ডিসেম্বর রাতে ভোট ডাকাতি হয়ে গেছে। যেমনি ভাবে একজন নারীর ভোটাধিকার বঞ্চিত করেছে, তেমনি ভাবে একজন পুরুষের ভোটার অধিকারও বঞ্চিত করেছে এই সরকার।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমানের সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন- ড. শাহিদা রফিক, প্রফেসর ড. তাজমেরী ইসলাম, সেলিনা রউফ, লায়লা হক, ফরিদা ইয়াসমিন, রাশেদা ওয়াহিদ মুক্তা প্রমুখ।