ভাসানচর পরিদর্শনে যাচ্ছেন জাতিসংঘের দূত ইয়াংহি লি

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০১৯

ঢাকা : জাতিসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংহি লি নোয়াখালীর ভাসানচরে যাচ্ছেন আজ। বঙ্গোপসাগরে জেগে ওঠা ভাসানচরে বাংলাদেশ সরকার মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের একাংশকে অস্থায়ীভাবে রাখার জন্য অবকাঠামোগত উন্নতি করেছে।

আজ ২৪ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার ভাসানচর পরিদর্শনের কথা রয়েছে ইয়াংহি লি’র।

বাংলাদেশ সরকার ওই চরের ব্যাপক উন্নতি সাধন করে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের পরিকল্পনা করছে।

এর আগে ওই চরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরের পরিকল্পনা নাকচ করে দেয় বিভিন্ন সংস্থা। তবে অবকাঠামোগত উন্নতির পর দ্বীপটি মানুষ বসবাসের সম্পূর্ণ উপযোগী হবে বলে জানিয়েছে সরকার। সেই চরে পরিদর্শন করতে যাচ্ছেন ইয়াংহি লি।

সফর শেষে আগামীকাল ২৫ জানুয়ারি বিকেল ৫টায় ঢাকায় ইয়াংহি লির এক সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে।

বর্তমানে মিয়ানমারের প্রতিবেশী রাষ্ট্র বাংলাদেশ এবং থাইল্যান্ডে আনিষ্ঠানিকভাবে সফর করছেন জাতিসংঘের বিশেষ এই দূত।

২৫ হাজার রোহিঙ্গা পরিবারের প্রায় এক লাখ মানুষকে ভাসানচরে নেওয়ার প্রস্তুতি শেষ হয়েছে বলে জানা গেছে। অল্প সময়ে ভাসানচর প্রস্তুত করেছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী।

দ্বীপটিতে ১২০টি গুচ্ছগ্রামে এক হাজার ৪৪০টি ব্যারাক হাউস, ১২০টি আশ্রয়ণ স্টেশন নির্মাণ করার কাজ চলমান রয়েছে। ইতোমধ্যেই এর মধ্যে বেশ কিছু বাড়িঘরের নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে।

বাংলাদেশের সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে ২ হাজার ৩১২ কেটি টাকার এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ নৌবাহিনী। সম্পূর্ণ সরকারি অর্থায়নের এ প্রকল্পের কাজ ২০১৯ সালের নভেম্বরের মধ্যে শেষ করার লক্ষ্য নির্ধারিত আছে।