পছন্দের মানুষকে আরো ভালোভাবে জানতে…

বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২৪, ২০১৯

লাইফস্টাইল ডেস্ক : আলাপ হয়েছে, কয়েকবার দেখা হয়েছে, আর প্রতিবারই মনে হয়েছে আবার কবে দেখা হবে! কারো সঙ্গে ঘনিষ্ট গড়ে ওঠার সূত্রপাত হয় এভাবেই।

উলটোদিক থেকেও সমান উৎসাহ দেখতে পেলে গড়গড়িয়ে প্রেমের গাড়ি চালু হয়ে যেতেও দেরি হয় না বিশেষ! প্রশ্ন হলো, এই অল্প সময়ের মধ্যে মানুষটাকে কতটুকু চিনতে পারলেন? প্রথম আলাপ থেকে প্রেমপর্ব পর্যন্ত গড়াতে যে সময়টুকু লাগে, সেই সময়টা কি একজন মানুষকে পুরোপুরি বুঝে ওঠার পক্ষে যথেষ্ট? যথেষ্ট নয়।

তাহলে যা করবেন-

রেস্তোরাঁয় তাঁকে অর্ডার দিতে দিন
উনি খাবার অর্ডার দেওয়ার আগে নিশ্চিতভাবেই আপনার পছন্দ জানতে চাইবেন। সেই ফাঁকে আপনিও বুঝে নিতে পারবেন উনি কী কী খেতে ভালোবাসেন, কোনটা অপছন্দ করেন। উনি কীভাবে সিদ্ধান্ত নেন, সেটাও এই খাবার অর্ডার দেওয়া দেখেই আন্দাজ করা সম্ভব। যিনি দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে অভ্যস্ত, তিনি খাবারের মেনু নিয়ে ভাবতেও খুব একটা সময় নষ্ট করবেন না।

পছন্দের বিষয় নিয়ে কথা বলুন
এমন কোনো বিষয় নিয়ে যদি কথা বলা শুরু করেন যেটা আপনার নিজের মনের খুব কাছের, তা হলে উলটোদিকের ব্যক্তিটিও তাতে অংশ নেবেন এবং বিষয়টি সম্পর্কে তাঁর মনোভাবও আপনি সহজেই বুঝে নিতে পারবেন। এবং একটা বিষয় থেকেই সংশ্লিষ্ট আরও পাঁচটা বিষয় সর্ম্পকেও তাঁর মানসিকতা যাচাই করে নিতে পারবেন।

ছোটবেলার কথা বলুন
ছোটবেলার স্মৃতি নিয়ে কথা বলার সময় মানুষের মনের অনেক দরজাই হাট হয়ে খুলে যায়। এই ধরনের গল্প থেকেও একে অপরের মানসিকতা ভালোভাবেই বুঝে নেওয়া সম্ভব।

তাঁর কথাবার্তা, আচরণ খেয়াল করুন
উনি আপনার সঙ্গে কীভাবে কথা বলেন, আশপাশের অন্যান্য মানুষদের সঙ্গে কীভাবে কথা বলেন, সে সব ভালো করে খেয়াল করুন। রেস্তোরাঁর কর্মী, পথচারী সাধারণ মানুষ, ট্যাক্সির ড্রাইভার, তাঁর সহকর্মী, এঁদের প্রত্যেকের সঙ্গে কথা বলার সময় তাঁর হাবভাব কতটা পালটে যাচ্ছে সেটা খেয়াল করলে অনেক কিছুই বুঝতে পারবেন।

অফিসের কাজ নিয়ে কথা বলুন
অফিসে আপনার কাজকর্ম নিয়ে, কাজের চাপ নিয়ে কথা বলুন। উনি কীভাবে রিঅ্যাক্ট করেন দেখুন। হয়তো উনি আপনাকে শান্ত থাকতে বলবেন, চাপ কীভাবে কমানো যায় সে নিয়ে পরামর্শ দেবেন, অথবা নিজের অফিসের চাপ নিয়ে কথা বলতে শুরু করবেন। উনি যেভাবেই রিঅ্যাক্ট করুন না কেন, আপনি বুঝে নিতে পারবেন অনেক কিছু।