বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমসের বিরুদ্ধে উৎকোচ আদায়ের অভিযোগ

বুধবার, জানুয়ারি ২৩, ২০১৯

বেনাপোল থেকে এম ওসমান : বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমস তল্লাশী কেন্দ্রে ভারত থেকে আসা পাসপোর্টযাত্রীদের নানা ভাবে হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। চাহিদামতো উৎকোচ না দেওয়ায় যাত্রীদের আনা বিভিন্ন মালামাল জোরপূর্বক আটক দেখিয়ে রেখে দেয়া হচ্ছে।

অথচ চেকপোস্ট দিয়ে প্রতিদিন গোপন চুক্তিতে ল্যাগেজ ব্যবসায়ীদের লক্ষ লক্ষ টাকার ভারতীয় মালামালের ব্যাগ নির্বিঘ্নে পার হয়ে যাচ্ছে।

ভারত থেকে বাংলাদেশে বেড়াতে আসা ভারতীয় পাসপোর্ট যাত্রী রুপালী দে (পাসপোর্ট নং-এস ০০০৩৪৪৯) জানান, মঙ্গলবার তিনি দ্বিতীয়বার বাংলাদেশে তার আত্বীয় বাড়ি খুলনায় বেড়াতে আসার সময় তার ব্যবহৃত ৮টি শাড়ি নিয়ে আসছিলেন।

তার ব্যাগ তল্লাশীর সময় রহিমা খাতুন নামের একজন সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা ৩ হাজার টাকা উৎকোচ দাবি করেন। যাত্রী রুপালী দে বলে আমি কেন আপনাকে ৩ হাজার টাকা দিব আমি তো অবৈধ কোন মালামাল নিয়ে আসেনি। আমি আমার ব্যবহৃত কাপড় এনেছি। তখন ওই কাস্টমস অফিসার ক্ষিপ্ত হয়ে আমাকে বেয়াদব মহিলা বলে কাপড়গুলি রেখে একটি স্লিপ ধরিয়ে দেয়।

অপরদিকে রাখাল চন্দ্র হালদার নামে আর এক ভারতীয় পাসপোর্টযাত্রী (পাসপোর্ট নং-জেড ৪৮৮০৬১৫) বলেন, আমি ভারতীয় রুপির মাত্র ৭ হাজার টাকার বিভিন্ন মালামাল নিয়ে বাংলাদেশে আমার আত্বীয় বাড়ি বেড়াতে যাওয়ার জন্য আসি।

কাস্টমস তল্লাশী কেন্দ্রে আমার ব্যাগ খুলে বিজন কুমার সাহা নামের একজন সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা আমার নিকট থেকে ২ হাজার টাকা দাবি করেন। আমি টাকা দিতে রাজি না হলে তিনি আমার মালামাল কেড়ে রেখে দিয়ে একটি স্লিপ হাতে ধরিয়ে দেয়।

এ ব্যাপারে সহকারি রাজস্ব কর্মকর্তা রহিমা খাতুন ও বিজন কুমার সাহা তাদের বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, তাদের কাছ থেকে কোন মালামাল জোর করে রাখা হয়নি। অবৈধ পণ্য আটক করে তাদের আটক স্লিপ দেয়া হয়েছে।

এ ব্যাপারে বেনাপোল চেকপোস্ট কাস্টমসের রাজস্ব কর্মকর্তা সমীর কুমার জানান, ভারতীয় পাসপোর্টযাত্রীরা কোন মালামাল নিয়ে আসতে পারবে না। তারা কেন মালামাল নিয়ে আসবে। চুক্তির মাধ্যমে প্রতিদিন লক্ষ লক্ষ টাকার মালামাল চলে যাচ্ছে তখন বাধা দেন না কেন, এ প্রশ্নের জবাবে বলেন, এটা হওয়ার কথা না। যদি এ রকম হয় আমি বিষয়টি দেখব।