বার্নাব্যুতে মড্রিচ ম্যাজিকে হাসলো রিয়াল

রবিবার, জানুয়ারি ২০, ২০১৯

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: শিরোনাম দেখে কাসেমিরো ভক্তরা একটু নাখোশ হতে পারেন। কারণ, বার্নাব্যুতে আরও একবার হতাশার আগুনে পোড়ানোর ইঙ্গিত দেওয়া রাতে রিয়াল মাদ্রিদের প্রথম ত্রাতা হয়ে আসেন এই ব্রাজিলিয়ান মিডফিল্ডারই। টিকটিক করে ঘড়ির কাঁটা ৭৭ মিনিট অতিক্রম করে ফেলেছে। কিন্তু সান্তিয়াগো বার্নাব্যুতে গোলের দেখা নাই। তবে কি আরও একবার ড্র হতাশাতেই পুড়তে হবে? এই শঙ্কার আগুনে দগ্ধ রিয়ালের সমর্থকেরা ততক্ষণে নিজ দলের খেলোয়াড়দেরই দুয়ো দিতে শুরু করেছে। ঠিক তখনই বক্সের বাইরে থেকে দূরপাল্লার বুলেট শটে রিয়ালকে এগিয়ে দেন কাসেমিরো। হতাশার আগুন নিভিয়ে বার্নাব্যুতে তোলেন উচ্ছ্বাসের ঢেউ।

কাসেমিরোর এই গোলেই জয় দেখছিল রিয়াল। ম্যাচের অন্তিম সময়ে মানে শেষ বাঁশি বাজার আগে আগে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন ব্যালন ডি’অর জয়ী লুকা মড্রিচ। গতকাল রাতে সেভিয়fর বিপক্ষে রিয়ালের ২-০ গোলের জয়ের নায়ক তাই এক অর্থে তারা দুজনেই। কিন্তু স্প্যানিশ ফুটবল বোদ্ধাদের রায় বার্নাব্যুর এই জয়টি মড্রিচ-ম্যাজিকেরই ফসল।

২০১৮ সালটি ছিল রিয়াল মাদ্রিদের ক্রোয়েশিয়ান এই মিডফিল্ডারের জন্য স্বপ্নময় এক বছর। মেসি-রোনালদোর রাজত্বে হানা দিয়ে জিতে নিয়েছেন বছরের সবগুলো ব্যক্তিগত বড় পুরস্কারই। কিন্তু হঠাৎ করেই যেন কি হয়ে যায় তার! গত বেশ কিছু দিন ধরে তার পায়ে সেই মোহনীয় জাদুর দেখা মিলছিল না। অবশেষে গতকাল বার্নাব্যুতে যেন হয়ে গেলেন হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা।

কণ্ঠে নয়, ফুটবলের নান্দনিক সুর তুললেন পায়ে। ম্যাচের শুরু থেকে শেষ, পুরো সময়েই মড্রিচ ছিলেন উজ্জ্বল ব্যতিক্রম। ম্যাচসেরার পুরস্কারটিও পেয়েছেন তিনিই। কাসেমিরো যে গোলটি করেছেন, সেটিরও মূল উৎস ছিলেন স্বয়ং মড্রিচ। সময়টা একদমই ভালো যাচ্ছে না রিয়ালের। দলের একজনও ছন্দে নেই। রিয়ালের দুর্দশাটা আরও গাঢ় করেছে চোট। চোটের কারণে বর্তমানেও যেমন মাঠের বাইরে টনি ক্রুস, গ্যারেথ বেল, ড্যানি কারবাহাল, মার্কো এসেনসিওরা।

এই অবস্থায় আবার তারকা মিডফিল্ডার ইসকোর সঙ্গেও কোচের দ্বন্দ্ব। ফলে তাকে কালও মাঠে নামাননি কোচ সোলারি। রিয়ালের আর্জেন্টাইন কোচ কাল মাঠের বাইরে বসিয়ে রাখেন ব্রাজিলিয়ান ডিফেন্ডার মার্সেলোকেও। বোঝাই যাচ্ছে, তারকাদের অনুপস্থিতিতে কোচ সোলারিকে বাধ্য হয়ে একাদশ সাজাতে হয় তরুণদের নিয়ে।

একদিকে তারুণ্য নির্ভর একাদশ। অন্যদিকে প্রতিপক্ষ হিসেবে সেভিয়াও বেশ শক্তিশালী। দুইয়ে মিলে রিয়াল শিবির ভয়েই ছিল। সেই ভয়টা আরও বড় হচ্ছিল গোল না পাওয়ায়। শেষ পর্যন্ত সেই ভয় কাটিয়ে দলকে জয়ে ভাসিয়েছেন কাসেমিরো-মড্রিচ।

দারুণ এই জয় হাসির পাশাপাশি বার্নাব্যুতে ফিরিয়ে এনেছে শিরোপা জয়ের বিশ্বাস্য। এখনো পর্যন্ত শীর্ষে থাকা বার্সেলোনার চেয়ে পূর্ণ ৭ পয়েন্টে পিছিয়ে রিয়াল। আজ রোববার রাতে দুর্বল লেগানেসের বিপক্ষে জিতলে কাতালনরা আবার এগিয়ে যাবে সেই ১০ পয়েন্টেই। ১৯ ম্যাচে পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে বার্সেলোনা। ২০ ম্যাচে ৪১ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে অ্যাতলেতিকো মাদ্রিদ। গতকাল রাতে যারা হুয়েস্কার বিপক্ষে জিতেছে ৩-০ গোলে। সেখানে তিন নম্বরে থাকা রিয়ালের পয়েন্ট ২০ ম্যাচে ৩৬।

তারপরও ম্যাচ শেষে রিয়ালের আর্জেন্টাইন কোচ সোলারির কণ্ঠে ঝরল আত্মবিশ্বাস। লিগ শিরোপার সম্ভাবনা তো দেখছেনই, সোলারি আশাবাদী ‘ট্রেবল’ (লিগ, কোপা ডেল রে ও চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা) জয়ের বিষয়েও! ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গেই বললেন, ‘তিনটি প্রতিযোগিতাতেই আমরা মৌসুমের শেষ পর্যন্ত লড়াই করে যাব। রিয়াল মাদ্রিদের পক্ষে কোনো কিছুই অসম্ভব নয়।’