কে বেশি জনপ্রিয়তা পাবে, সারা না জাহুবী?

শনিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৮

বিনোদন ডেস্ক : এক জনের পদবি খান। অন্য জনের কাপূর। তবে জন্মসূত্রে পাওয়া কৌলিন্যকে কাজে রূপান্তরিত করতে না পারলে রুপালি জগতে হারিয়ে যেতে যে সময় লাগে না, সেটাও তারা ভালই জানেন। সিনেমা তাদের রক্তে, প্রতিভা তাদের জিনগত। সারা আলি খান ও জাহ্নবী কপূর।

করণ জোহরের ব্যানারে ‘ধড়ক’-এ ডেবিউ করেছেন জাহ্নবী। সদ্য মুক্তি পেয়েছে সারার প্রথম ছবি ‘কেদারনাথ’। আসছে সারার আরও একটি বিগ বাজেটের ছবি ‘সিম্বা’।

সমালোচিত হলেও জাহ্নবীর প্রথম ছবি বক্স অফিসে হিট। সারার ‘কেদারনাথ’ মিশ্র প্রতিক্রিয়া পেয়েছে। তবে দুই নবাগতাই রয়েছেন আলোচনার কেন্দ্রে।

শ্রীদেবী ও বনি কপূরের কন্যা জাহ্নবীর ডেবিউ নিয়ে আলোচনার কারণ একাধিক। সুপারহিট মরাঠি ছবি ‘সাইরাট’ এর হিন্দি রিমেক, করণ জোহরের প্রযোজনা, ঈশান-জাহ্নবীর নতুন জুটি।

অন্য দিকে সায়েফ আলি খান ও অমৃতা সিংহের তনয়া সারার ডেবিউ ছবি ‘কেদারনাথ’ আদৌ কোনও দিন মুক্তির আলো দেখবে কি না, তা নিয়ে সংশয় ছিল। দ্বিতীয় ছবিতেই অবশ্য সারার মাথায় হাত রেখেছেন করণ।

তুলনামূলক বিচারে প্রথম মাপকাঠি অবশ্যই অভিনয়। প্রথম ছবিতে অভিনয়ের যথেষ্ট সুযোগ পেয়েছেন দু’জনেই। তবে চুলচেরা বিশ্লেষণে জাহ্নবীর চেয়ে কয়েক কদম এগিয়ে থাকবেন সারা।

অভিনীত চরিত্রের দিক থেকেও দু’জনের মধ্যে বেশ মিল। সে দিক থেকে সারা অনেক বেশি প্রাণবন্ত। সেখানে জাহ্নবীর অভিনয়ে স্বতঃস্ফূর্ততার অভাব চোখ এড়ায় না।

স্ক্রিন প্রেজ়েন্সে অবশ্য দুই নায়িকাই সমান সমান। ছবিতে তারা ডিগ্ল্যাম। কিন্তু প্রচারে ফুটে উঠেছে দু’জনেরই স্টাইল স্টেটমেন্ট। সেখানেও সারার বাজিমাত। রিভিলিং আউটফিটে জাহ্নবীকে দেখে মনে হয় তিনি অস্বস্তিতে।

এর পরেই আসে নাচের প্রসঙ্গ। এ ক্ষেত্রে অবশ্য জাহ্নবী অনেকটাই এগিয়ে। ঈশান খট্টরের মতো প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত ডান্সারের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ‘জিঙ্গত’-এ নেচেছেন জাহ্নবী।

সেখানে প্রথম ছবিতে সারার খামতি সে ভাবে চোখে না পড়লেও, রণবীর সিংহের পাশে তা বড়ই প্রকট।

বড় পর্দার সঙ্গে কর্ণ জোহরের চ্যাট শোয়েও ডেবিউ করেছেন সারা-জাহ্নবী। সেখানে তারা যে ভাবে কথা বলেছেন, তাতেও তাদের ব্যক্তিত্বের ঝলক ফুটে উঠেছে। যেমন, সারা অনেক বেশি খোলামেলা, স্পষ্টবাদী।

ছবি মুক্তি পাওয়ার আগেই তার ডেট ও বিয়ের পাত্র ঠিক করে ফেলেছেন তিনি! এ দিকে ঈশানের সঙ্গে জাহ্নবীর প্রেমের গুঞ্জন জোরালো হলেও তা স্বীকার করলেন না শ্রীদেবী কন্যা।

শেষ পর্যন্ত কার কেরিয়ার কোন খাতে বইবে তার অনেকটাই নির্ভর করবে ছবি নির্বাচনের দক্ষতার উপর। ‘স্টুডেন্ট অব দ্য ইয়ার’-এর পরে ‘হাইওয়ে’র মতো ছবি বেছেই কেরিয়ারের চাকা ঘুরিয়েছিলেন আলিয়া ভাট।

জাহ্নবীর প্রথম ছবি রিমেক। এবং পরের ঘোষিত ছবি (কর্ণ জোহরের ‘তখ্‌ত’) একটি পিরিয়ড ড্রামা। অন্য দিকে সারার দ্বিতীয় ছবি (সিম্বা) লার্জার দ্যান লাইফ।

তবে প্রথম দু’টি ছবিতেই বয়সে বড় অভিনেতাদের সঙ্গে জুটি বেঁধেছেন সারা। সেটা অবশ্যই তার সিভিতে প্লাস পয়েন্ট। তবে শেষ কথা তো বলবে অভিনয় দক্ষতা এবং ভাগ্য। দেখা যাক, শেষ পর্যন্ত কে দর্শকের মনে রাজত্ব করেন।

তথ্যসূত্র: আনন্দবাজার