দুর্বৃত্তরা শিশু আঁখিকে পুড়িয়ে হত্যা করল যেভাবে

বুধবার, অক্টোবর ২৪, ২০১৮

মানিকগঞ্জ: সাটুরিয়া উপজেলার আঁখি আক্তার (১১) নামের নিখোঁজ এক শিশুকে দৌলতপুর উপজেলার চকমিরপুর এলাকায় পুড়িয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গত সোমবার রাতে শিশুটির মা সেলিনা বেগম মানিকগঞ্জ হাসপাতালে গিয়ে পরনের জামাকাপড় দেখে মেয়র লাশ শনাক্ত করেন। শিশুটির বাড়ি সাটুরিয়া উপজেলার দরগ্রাম ইউনিয়নের তেবাড়িয়া গ্রামে।

গত শনিবার রাতে দৌলতপুর উপজেলার চকমিরপুর এলাকায় ফসলের ক্ষেতের সেচঘর থেকে অজ্ঞাত হিসেবে শিশুটির লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

শিশুটির খালা রেবেকা জানান, আঁখির জন্মের আগে তার বাবা আবুল হোসেন মারা যান। এর পর থেকে মা সেলিনা বেগমের সঙ্গে নানাবাড়ি সাটুরিয়া উপজেলার দিঘুলিয়া গ্রামে থেকে একটি মাদ্রাসায় লেখাপড়া করত সে। সেলিনা তার আরও দুই বোনের সঙ্গে সাভারের হেমায়েতপুরে একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। সেখানেই ভাড়াবাসায় থাকেন। কয়েক দিন আগে আঁখিকে নিজের কাছে নিয়ে রেখেছিলেন। গত বৃহস্পতিবার (১৮ অক্টোবর) বিকাল তিনটার দিকে আঁখিকে দীঘুলিয়ার উদ্দেশে হেমায়েতপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে বাসে তুলে দেন সেলিনার বোনজামাই শাহাদৎ। এর পর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। দৌলতপুরে একটি লাশ উদ্ধারের খবর পেয়ে তারা মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে গিয়ে আঁখির লাশ শনাক্ত করেন।

দৌলতপুর থানার ওসি সুনীল কুমার কর্মকার জানান, পোশাক ও মুখমণ্ডলের আকৃতি দেখে আঁখির লাশ শনাক্ত করেছেন তার মা। পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তর করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িতদের ধরতে তদন্ত চলছে।