গাইবান্ধার উপনির্বাচনে ৬, জেলা পরিষদে ২৩৩টি ফরম বিক্রি আ.লীগের

সোমবার, সেপ্টেম্বর ৫, ২০২২

ঢাকা: সাবেক ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার আসনে (গাইবান্ধা-৫) নৌকা প্রতীকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের মনোনয়ন ফরম কিনেছেন ছয়জন। এছাড়া ৬১টি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে ২৩৩টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি করেছে আওয়ামী লীগ।

সোমবার (৫ সেপ্টেম্বর) দ্বিতীয় দিনের মত মনোনয়ন ফরম বিক্রি করে দলটি।

কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের উপ-দফতর সম্পাদক সায়েম খান এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, মনোনয়ন ফরম বিতরণের প্রথম দিনে গাইবান্ধা-৫ আসনে চারটি এবং ৬১টি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদে ১৪৭টি মনোনয়ন ফরম বিতরণ করা হয়েছিল। দ্বিতীয় দিনে গাইবান্ধা-৪ আসনে দুটি এবং জেলা পরিষদে আরো ৮৬টি মনোনয়ন ফরম বিক্রি হয়।

মনোনয়ন ফরম কেনা ও জমা দেওয়াকে কেন্দ্র করে উৎসবের আমেজ দেখা গেছে রাজধানীর ধানমণ্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে। নেতাকর্মীরা দলে দলে এসে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করছেন। একে অন্যের সঙ্গে কুশল বিনিময় করছেন। দলীয় ফরম সংগ্রহ করে দলবন্ধ হয়ে ছবি তুলছেন। সোমবার দুপুরে বৃষ্টি উপেক্ষা করে মনোনয়ন প্রত্যাশী ও তাদের অনুসারীরা ধানমণ্ডিস্থ আওয়ামী লীগের কার্যালয়ে ভিড় করেন।

আগামী ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ ও জমা দেওয়া যাবে।

আগামী শনিবার (১০ সেপ্টেম্বর) গণভবনে প্রধানমন্ত্রী ও দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মনোনয়ন বোর্ডের বৈঠকে এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

জাতীয় সংসদের প্রয়াত ডেপুটি স্পিকার ফজলে রাব্বী মিয়ার আসনে (গাইবান্ধা-৫) উপনির্বাচন আগামী ১২ অক্টোবর এবং ৬১ জেলা পরিষদের ভোটগ্রহণ ১৭ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে।

ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া গত ২২ জুলাই দিবাগত রাতে যুক্তরাষ্ট্রে নিউইয়র্কের মাউন্ট সিনাই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এর দুদিন পর তার সংসদীয় আসন শূন্য ঘোষণা করে সংসদ সচিবালয়। সংবিধান অনুযায়ী কোনো আসন শূন্য ঘোষণার ৯০ দিনের মধ্যে উপনির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে। এই সংসদীয় আসনে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) মাধ্যমে।

দেশের তিনটি পার্বত্য জেলা বাদে ৬১টি জেলা পরিষদে আগামী ১৭ অক্টোবর ভোটগ্রহণের তারিখ ঘোষণা করেছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। গত ২৩ আগস্ট কমিশনের সভায় এই সিদ্ধান্ত হয়।

ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, জেলা পরিষদে ভোটগ্রহণ হবে ১৭ অক্টোবর। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন ১৫ সেপ্টেম্বর।

এর আগে গত ১৭ এপ্রিল দেশের ৬১টি জেলা পরিষদ বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় এসব জেলা পরিষদ বিলুপ্ত করে সরকার।