সমুদ্রে লঘুচাপের প্রভাবে দুবলার চরে বেড়েছে পানি

মঙ্গলবার, আগস্ট ৯, ২০২২

বাগের হাট: সুন্দরবনের দুবলার চরে স্বাভাবিকের তুলনায় মঙ্গলবার জোয়ারের পানি বেড়েছে। মূলত উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট লঘুচাপের প্রভাবে সুন্দরবনের দুবলার চরে স্বাভাবিক জোয়ারের তুলনায় আড়াই-তিন ফুট পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। তবে আজ মঙ্গলবার রাতের জোয়ারে এ পানি আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কার কথা জানিয়েছে বনবিভাগ।

পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের দুবলা টহল ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা দীলিপ বলেন, লঘুচাপে মঙ্গলবার দুবলার চরে আগের তুনলায় আড়াই থেকে তিন ফুট পানি বেড়েছে। সাগর প্রচণ্ড উত্তাল থাকায় ঝড়ো বাতাসে অফিসের বাইরে যাওয়ার মতো পরিস্থিতি নেই।

সাগর উত্তাল হয়ে ওঠায় গভীর সমুদ্রে মাছ ধরতে যাওয়া জেলেরা তাদের ট্রলার নিয়ে সুন্দরবনের দুবলার চরের মেহেরআলী, ভাঙ্গার খাল ও ভেদাখালী খালে আশ্রয় নিয়েছেন। দুপুর পর্যন্ত এই তিন খালে ৫০-৬০টি ফিসিং ট্রলার আশ্রয় নিয়েছে। এছাড়া বনের অন্যান্য খালেও নিরাপদে আশ্রয় নিয়েছে জেলে-মাঝিমাল্লারা।

বন বিভাগের করমজল পর্যটন ও বন্যপ্রাণী প্রজনন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. আজাদ কবির বলেন, মঙ্গলবারের জোয়ারে স্বাভাবিকের তুলনায় সুন্দরবনের নদী-খালে দুই ফুটের মতো পানি বেড়েছে। রাতের জোয়ারে পানি আরও বাড়তে পারে। কারণ লঘুচাপের প্রভারে পূর্বদিকের বাতাসের চাপ বেশি। পূর্বদিকের বাতাসে সাধারণত পানি বেড়ে থাকে। এখন অমাবশ্যা চলছে। এ সময় পানি কম হয়। পূর্ণিমায় পানি বেশি হয়। কিন্তু এখন পানির চাপ পূর্ণিমার চেয়েও বেশি। কারণ এটি লঘুচাপের প্রভাব।

তিনি আরও বলেন, পানি বাড়লে সুন্দরবনের বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল ডুবলে তাতে প্রাণীর ক্ষয়ক্ষতির আশঙ্কা থাকে। তাই বাড়তি পানিতে যাতে বন্যপ্রাণীর ক্ষয়ক্ষতি না হয়, সেজন্য বনের মধ্যে বিভিন্ন জায়গায় বনবিভাগের পক্ষ থেকে উঁচু উঁচু টিলা করে রাখা হয়েছে। পানি বাড়লে প্রাণীগুলো বনের ভিতরের উঁচু জায়গা