স্ত্রীর মর্যাদা পেতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশনে কলেজছাত্রী

শুক্রবার, জুলাই ২২, ২০২২

নীলফামারী: নীলফামারীর ডোমারে স্ত্রীর মর্যাদার দাবিতে তিনদিন ধরে প্রেমিক নিপুণ রায়ের বাড়িতে অবস্থান করছেন এক কলেজছাত্রী। শুক্রবার (২২ জুলাই) বিকেল পর্যন্ত উপজেলার নয়ানী বাকডোকরা বাবুপাড়া এলাকায় অবস্থান করছেন তিনি।

নিপুণ রায় উপজেলার বোড়াগাড়ী ইউনিয়নের নয়ানী বাকডোকরা বাবুপাড়ার বাবু ভূপেশ চন্দ্র রায়ের ছেলে। তিনি জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টার্সের।

ওই কলেজছাত্রী জানান, পাঁচ বছর পূর্বে নিপুণের মামা কনকের মাধ্যমে নীলফামারী কলেজে তার সঙ্গে পরিচয় হয়। একপর্যায়ে আমাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। লেখাপড়ার কারণে এক সময় দুজন ঢাকায় গেলে ২০১৯ সালের ৩ জানুয়ারি লোকনাথ মন্দিরে বিয়ে করি।

বিয়ের সময় নিপুণের বান্ধবী ও তার স্বামী উপস্থিত ছিলেন। বিয়ের পর নিপুণের এক বান্ধবীর বাসায় আমরা এক সপ্তাহ অবস্থান করি। বিষয়টি চাকরি না হওয়া পর্যন্ত আমাকে গোপন রাখতে বলেছিল নিপুণ। কিন্তু গত এক মাস ধরে নিপুণ আমার সঙ্গে আগের মতো যোগাযোগ রাখছে না। তাই তাকে ফোন দিয়েই মঙ্গলবার সন্ধ্যায় বাড়িতে চলে আসি।

তিনি আরও জানান, নিপুণের পরিবার চান আমি জেনো এখান থেকে চলে যাই। তারা আমার পরিবারকে চার লাখ ৫০ হাজার টাকা দিতে চেয়েছে। তবে আমার পরিবার রাজী নয়। নিপুণ আমাকে স্ত্রীর মর্যাদা দিবে না হলে সে আমার মরা মুখ দেখবে।

এ ব্যাপারে নিপুণ রায়ের বাবা বাবু ভূপেশ চন্দ্র রায় বলেন, মেয়েটি গত তিনদিন ধরে আমার বাড়িতে আছে। মেয়েটি বলছে সে নাকি আমার ছেলেকে বিয়ে করেছে। আমার ছেলে বাড়িতে আসুক তার মুখে শুনে সিদ্ধান্ত নিবো।

নিপুণের চাচা জগদীশ চন্দ্র জানান, নিপুণকে বাড়িতে আসতে বলেছি। মেয়েটির কথা যদি সত্য হয় তাহলে আমরা নিপুণের সঙ্গে তাকে বিয়ে দিবো।

বোড়াগাড়ী ইউপি চেয়ারম্যান আমিনুল ইসলাম রিমুন জানান, বিয়ের দাবিতে কলেজ ছাত্রীর অবস্থান করার কথা নিশ্চিত করেছেন। ঢাকায় থাকার কারণে ঘটনাস্থলে যেতে পারিনি। উভয় পক্ষ বসে একটা সিদ্ধান্তে আসা উচিত বলে আমি মনে করি।