মৃত্যুর ১২ থেকে ১৫ ঘণ্টা পর ময়নাতদন্ত করা হয় সুশান্তের শরীরের!

সোমবার, আগস্ট ২৪, ২০২০

বিনোদন ডেস্ক : সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর তদন্তে নতুন খবর এল প্রকাশ্যে। এবার চাঞ্চল্য ছড়াল ফরেনসিক রিপোর্টের খবরকে কেন্দ্র করে। শোনা যাচ্ছে, ময়নাতদন্তের ১২ থেকে ১৫ ঘণ্টা আগে নাকি মৃত্যু হয়েছে সুশান্ত সিং রাজপুতের।

১৪ জুন মুম্বাইয়ের ফ্ল্যাট থেকে সুশান্ত সিং রাজপুতের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হয়। মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মুম্বাইয়ের কুপার হাসপাতালে পাঠানো হয়েছিল। সূত্রের খবর মানলে, সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর ১২ থেকে ১৫ ঘণ্টা পরই তার দেহের ময়নাতদন্ত করা হয়েছিল বলে ফরেনসিক রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়েছে। এর পাশাপাশি জানানো হয়েছে, যে কাপড় দিয়ে ফাঁস লাগানো হয়েছিল তা অন্তত ২০০ কিলোগ্রাম ওজন সহ্য করতে সক্ষম।

এর আগে সুশান্তের বাবার আইনজীবী বিকাশ সিং অভিযোগ জানিয়েছিলেন, মুম্বাই পুলিশের করা প্রাথমিক ময়নাতদন্তের রিপোর্টে কোনও সময়ের উল্লেখ নেই। তা কেন নেই? সেই প্রশ্ন তুলেছিলেন বিকাশ। এবার নতুন প্রশ্ন উঠে আসছে সোশ্যাল মিডিয়ায়, সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার দিশা সালিয়ানের মৃত্যুর তিনদিন পর তার মরদেহের ময়নাতদন্ত করা হয়েছিল। তাহলে সুশান্তের শরীরের ময়নাতদন্ত করতে এত তাড়াহুড়ো করা হল কেন?

এদিকে, সুশান্ত মামলায় আজ আবারও তার ক্রিয়েটিভ ম্যানেজার তথা বন্ধু সিদ্ধার্থ পিঠানিকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন সিবিআই আধিকারিকরা। পাশাপাশি সুশান্তের রাঁধুনি নীরজকেও জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। দু’জনের বয়ানে পার্থক্য রয়েছে বলে খবর।

এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় সিদ্ধার্থকে গ্রেপ্তারের দাবিতে সরব হয়েছেন অনেকে। গ্রেপ্তারের দাবি জানিয়েছেন সুশান্তের এক দাদা নীরজ কুমার সিং বাবলুও। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই সুশান্তের ফ্ল্যাটে গিয়ে ভিডিওগ্রাফির সাহায্যে ঘটনার পুনর্নির্মাণ করেছে সিবিআই।