বগুড়ায় রাস্তা বন্ধ করে যুব শ্রমিক লীগের ভুরিভোজ

শনিবার, অক্টোবর ১২, ২০১৯

বগুড়া : বগুড়া শহরের ব্যস্ততম সড়ক বন্ধ করে রান্না বান্না ও ভুরিভোজের ঘটনা ঘটেছে। প্রায় আট হাজার মানুষের জন্য রাস্তায় বিশেষ কায়দায় চুলা করে ৮৩ টি বড় পাতিলে করা হয় রান্না। শুক্রবার (১১ অক্টোবর) রাত থেকে শনিবার (১২ অক্টোবর) দুপুর পর্যন্ত চলে রান্নাবান্না ও অতিথি আপ্যায়নের বিশেষ আয়োজন।

এদিকে শহরের ব্যস্ততম এ রাস্তা বন্ধ করায় ব্যাপক ভোগান্তিতে পড়েছিলেন যাত্রীরা। রাস্তাটি দিয়ে চলতে দেয়া হয়নি পথচারীদের। বলছিলাম বগুড়া শহরের তিনমাথা থেকে সাতমাথা সড়কের কথা। ব্যস্ততম এ সড়কটি বন্ধ করে জাতীয় যুব শ্রমিক লীগের বগুড়া সভাপতি রাকিব উদ্দিন প্রামাণিক সিজার এ আয়োজন করেছিলেন বলে জানা গেছে।

স্থানীয়রা জানান, শনিবার জাতীয় শ্রমিক লীগের ৫০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। এ উপলক্ষে ঢাকা-রংপুর মহাসড়ক থেকে বগুড়া শহরে প্রবেশের মুখে তিনমাথা এলাকার বিশাল অংশ শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে বন্ধ রাখা হয়। রাস্তায় তোরণ নির্মাণ করে ডিভাইডারের মাঝখানে কাপড় দিয়ে ঢেকে দেয়া হয়। আট হাজার মানুষের জন্য ৮৩টি বড় পাতিলে রান্নাবান্না করা হয়। শনিবার রান্নাবান্না শেষে রাস্তার ওপরই খাবার পরিবেশন করা হয়।

খাবার শেষে ওয়ান টাইম প্লেটগুলো রাস্তার পাশে ফেলা হয়। এভাবে দীর্ঘ সময় রাস্তা বন্ধ করে মেজবানের আয়োজন করায় যানবাহন চলাচলে বিঘ্ন ঘটে। এতে ওই পথে চলাচলকারী জনগণের দুর্ভোগ পোহাতে হয়। এব্যাপারে জাতীয় যুব শ্রমিক লীগ বগুড়া জেলা শাখার সভাপতি রাকিব উদ্দিন প্রামাণিক সিজার বলেন, শুক্রবার রাতে নয়, শনিবার ভোর থেকে আট হাজার অতিথির জন্য রান্নাবান্না হয়েছে। অনুমতির জন্য পৌরসভা ও ডিসি অফিসে দরখাস্ত দিয়েছিলাম। অনুমতি পেয়েই এ আয়োজন করেছি আমরা।

এদিকে তার বক্তব্যর ব্যাপারে জানতে কথা হয় বগুড়া পৌরসভার সচিব রেজাউল করিমের সাথে। তিনি জানান, রাস্তা বন্ধ করে কোনো অনুষ্ঠান করতে কাউকে অনুমতি দেয়ার এখতিয়ার আমাদের নেই। আমরা অনুমতি দেইনি কাউকে।

বগুড়া সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম বদিউজ্জামান বলেন, প্রতি বছরই তিনমাথা এলাকায় শ্রমিক লীগের অনুষ্ঠান হয়। এবারও তাদের অনুমতি দেয়া হয়েছে। সড়কের ওপর মেজবানের আয়োজন ঠিক হলো কিনা জানতে চাইলে বক্তব্য দিতে রাজি হননি জেলা আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা।