মারা গেলেন থানার সামনে গায়ে আগুন দেয়া সেই কলেজ ছাত্রী

বুধবার, অক্টোবর ২, ২০১৯

রাজশাহী : রাজশাহীতে থানার সামনে গায়ে আগুন দিয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করা লিজা নামের সেই কলেজ ছাত্রী মারা গেছেন। আজ (২ অক্টোবর) ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউমিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

গত ২৮ সেপ্টেম্বর নিজের স্বামীর বিরুদ্ধে থানায় মামলা করতে গিয়ে ব্যর্থ হলে থানা থেকে বের হয়ে থানার সামনেই গায়ে আগুন দিয়ে আত্নহত্যার চেষ্টা করেন লিজা। এরপর ওইদিন রাতে আশঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আনা হয়।

আগুনে তার শরীরের ৬৩ শতাংশ দগ্ধ হয়।ঘটনার চারদিন পর আজ তার মৃত্যু হয়।

এদিকে ঘটনা তদন্তে কাজ শুরু করেছে মানবাধিকার কমিশন। এর অংশ হিসেবে গতকাল নগরীর শাহ মখদুম থানায় যায় কমিটি। এ সময় কমিটির প্রধান ও মানবাধিকার কমিশনের পরিচালক আল মাহমুদ ফয়জুল কবিরের সঙ্গে অপর তিন সদস্য ছিলেন।

পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলার পর ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তারা। নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই প্রতিবেদন দাখিল করা হবে বলে জানান তদন্ত দলের প্রধান।

কলেজছাত্রী লিজা গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার প্রধান পাড়ার আব্দুল লতিফ বিশ্বাসের পালিত মেয়ে। তিনি রাজশাহী মহিলা কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির বাণিজ্য বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার স্বামীর নাম সাখাওয়াত হোসেন (১৮), তিনি রাজশাহী সিটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির শিক্ষার্থী। সাখাওয়াত চাঁপাইনবাবগঞ্জের নাচোল উপজেলার খান্দুরা এলাকার খোকন আলীর ছেলে।

গত জানুয়ারিতে প্রেম করে পরিবারের অমতে বিয়ে করেন তারা। বিয়ের পর থেকেই নগরীর গাঙপাড়া এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে সংসার করছিলেন লিজা। ঘটনার পর থেকে স্বামী সাখাওয়াত পলাতক রয়েছেন।