শিবগঞ্জে শিশু চুরি করে পালানোর সময় এক মহিলা আটক

শুক্রবার, সেপ্টেম্বর ২৭, ২০১৯

জিএম মিজান, শিবগঞ্জ (বগুড়া) প্রতিনিধি : বগুড়ার শিবগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় একটি ক্লিনিক থেকে কৌশলে সদ্য ভূমিষ্ট এক শিশু সন্তানকে চুরি করে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

তবে ঘটনাটি নিয়ে এলাকায় তোলাপারের সৃষ্টি হয়েছে। জানা যায়, শিবগঞ্জ উপজেলা সদরের মমিত ক্লিনিকে গত ৩ দিন পূর্বে শিবগঞ্জ উপজেলার কিচক ইউনিয়নের ধারিয়া গাংগইট গ্রামের ইব্রাহীম হোসেন এর স্ত্রী ছাবিনা ইয়াছমিন বাচ্চা হওয়ার জন্য ভর্তি হয়। হঠাৎ করে বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টার দিকে নিলফামারী জেলার ডোমার উপজেলা সদরের মাহবুবর রহমান এর স্ত্রী মোছাঃ ছনি আক্তার উক্ত ক্লিনিকে এসে বলে আমি পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের মাঠকর্মী হিসেবে কাজ করি। সে বলে গর্ভবতি মহিলাদের জন্য সরকারি ভাবে আসা ১০ হাজার টাকা অনুদান দিয়ে থাকি। সে জন্য বাচ্চাকে সঙ্গে নিয়ে মহাস্থান কলেজে উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা রয়েছেন বলে সেখানে নিয়ে যায়।

তার কথা মতো বাচ্চাটিকে নিয়ে নানী ছায়মন তার সঙ্গে সিএনজি যোগে রওনা দেয়। সনি বলেন বাচ্চার ছবি তোলা হলেই আপনারা সরকারি বরাদ্দকৃত টাকা পেয়ে যাবেন। এই ভাবে নানা তালবাহানার এক প্রর্যায়ে নানীকে বাচ্চাসহ কলেজের নিচতলায় একটি শ্রেণি কক্ষে নিয়ে এসে নানীর গলায় কাপর দিয়ে চেপে ধরে।

তার চিৎকারে কলেজের শিক্ষক শিক্ষার্থীরা এগিয়ে আসলে সে প্রাণে রক্ষা পায় । সেই সময় ওই মহিলা বাচ্চাটিকে কোলে নিয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করলে স্থানীয় জনগণ ও শিক্ষক শিক্ষার্থীবৃন্দ তাকে আটক করে, কলেজ অফিস কক্ষে আটক রেখে থানা পুলিশকে খবর দেয়। পুলিশ তাদের উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

এব্যাপারে আটকৃত সনি বলেন, আমার ৭ বছর পূর্বে বিয়ে হয়েছে আমার কোন সন্তান নেই। সে জন্যই আমি এই পথ বেছে নিয়েছি। শিবগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মিজানুর রহমান এ প্রতিবেদক-কে বলেন, আটকৃত মহিলাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তবে এর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

মোমিত হাসপাতাল ( ক্লিনিক) এর পরিচালক মোনায়েম হোসেন বলেন, বিষয়টি দুঃখ জনক। আমি বিষয়টি জানার পর তাৎক্ষনিক ভাবে সার্বিক সহযোগিতা প্রদান করেছি। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা প্রস্তুতি চলছে।