ভোট না দেয়ায় গণধর্ষণ: ৫ দিনের রিমান্ডে ৭ আসামি

রবিবার, জানুয়ারি ৬, ২০১৯

নোয়াখালী : নৌকায় না দিয়ে ধানের শীষে ভোট দেয়ায় নোয়াখালীর সুবর্ণচরে স্বামী-সন্তান বেঁধে ঘর থেকে তুলে নিয়ে গৃহবধূকে গণধর্ষণের ঘটনায় গ্রেফতার ৭ আসামিকে ৫ দিনের রিমান্ডে দিয়েছে আদালত।

পুলিশের রিমান্ড আবেদনের শুনানি শেষে রবিবার (৬ জানুয়ারি) দুপুর ১২টায় ২নং আমলি আদালতের বিচারক সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট নবনিতা গুহ তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন- রুহুল আমিন, সোহেল, বাদশা আলম, জসিম, বেচু, স্বপন ও হাসান আলী বুলু।

প্রসঙ্গত, নৌকায় ভোট না দিয়ে ধানের শীষে ভোট দেয়ায় গত রবিবার (৩০ ডিসেম্বর) নোয়াখালী সুবর্ণচর উপজেলার চরজুবলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ১০-১২ জন কর্মী রাত ১০টার দিকে সিরাজ মিয়া নামে এক সিএনজি চালকের স্ত্রীকে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে গণধর্ষণ করে।

গৃহবধূর স্বামী সিএনজিচালক বলেন, ৩০ ডিসেম্বর তার স্ত্রী কেন্দ্রে ভোট দিতে গেলে স্থানীয় আওয়ামী লীগ কর্মী সোহেল, আলাউদ্দিন, স্বপন, আনিস, আনোয়ার, আবু মাঝি, হেদু মাঝিসহ কয়েকজন তাকে প্রকাশ্যে নৌকায় ভোট দিতে বলে। এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। পরে সবার সামনে তার স্ত্রী ধানের শীষে সিল দেয়।

ধর্ষিতার স্বামী আরও জানান, এরপর রাত ১০টার দিকে আওয়ামী লীগের সেসব কর্মী তার বাড়ি এসে পুলিশ পরিচয়ে দরজা খুলতে বলে। সিরাজ মিয়া দরজা খুললে ঘরে ঢুকে তারা সিরাজ মিয়া ও তার চার সন্তানের হাত-পা-মুখ বেঁধে ফেলে। এরপর তার স্ত্রীকে জোর করে তুলে নিয়ে যায় এবং রাতভর গণধর্ষণ করে। পরের দিন সোমবার (৩১ ডিসেম্বর) ভোর ৫টার দিকে উলঙ্গ অবস্থায় ঘরের পাশে ফেলে যায়। এলাকাবাসী সকালে গৃহবধূকে উদ্ধার করে এবং অজ্ঞান অবস্থায় দুপুর সোয়া ১২টায় নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

এঘটনা দেশজুড়ে আলোড়ন সৃষ্টি হলে ঘটনার মূলহোতা ও নির্দেশদাতা উপজেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য রুহুল আমিনসহ ৭ আসামিকে গ্রেফতার করে পুলিশ।