বিএনপির ২১ নেতাকর্মী আটক, ৩ জনকে জেল

বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২৭, ২০১৮

হবিগঞ্জ : হবিগঞ্জ-১ আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী ড. রেজা কিবরিয়ার সমর্থনে নির্বাচনী প্রচারণার পথসভা থেকে ডিবি ও নবীগঞ্জ থানা পুলিশ অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন মামলার আসামী ২১ জন নেতা কর্মীকে আটক করেছে।

গত বুধবার রাতে নবীগঞ্জ উপজেলার কাজির বাজার নামক স্থান থেকে তাদেরকে আটক করা হয়।

এর মধ্যে ৩ জনকে ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়েছে এবং বাকীদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

আটককৃত হলো- উপজেলার হরিধরপুর গ্রামের মৃত ছানাওর মিয়ার পুত্র ছাত্রদল নেতা মিজানুর রহমান জুয়েল, জালালসাফ গ্রামের মৃত মনির হোসেনের পুত্র কামাল হোসেন, একই গ্রামের হাজী রমজান আলীর পুত্র আলমগীর হোসেন, হাজী কামার মিয়ার পুত্র বদরুল জামান, হাজু মিয়ার পুত্র আশিক মিয়া, ছলিম উল্লাহর পুত্র রাজু আহমদ, ছদর উদ্দিনের পুত্র রুবেল মিয়া, দুদু মিয়া চৌধুরীর পুত্র সুমন চৌধুরী,হাজী ফকির মিয়ার পুত্র জুয়েল মিয়া,আলমাছ মিয়ার পুত্র ফজলু মিয়া, হবিগঞ্জ মাহমুদাবাদের আকলাছ মিয়ার পুত্র সৈয়দ মনসুর রমিজ, একই এলাকার মৃত তছির আলীর পুত্র মোঃ অলি নাসির, হোসেনপুর গ্রামের মৃত তামিম উল্লাহর পুত্র শাহাবুদ্দিন, পশ্চিম জাহিদপুর গ্রামের মৃত মনর উদ্দিনের পুত্র হোসাইন আহমদ, নোয়াগাওয়ের মৃত আব্দুল মোতালিবের পুত্র আজিজুর রহমান, দত্তগ্রামের মবশ্বর আলীর পুত্র শাহ হোসাইন আহমদ, রাজ নগর গ্রামের ওয়াতির আলীর পুত্র পৌর যুবদল নেতা নুরুল আমিন, আমড়াখাইর গ্রামের হাবিবুর রহমানের পুত্র শাহীদ আহমদ তালুদার, মৃত আল্লাদ মিয়া পুত্র মোঃ ওসমান, সদরঘাট গ্রামের মৃত সদর উদ্দিনের পুত্র আতিকুর রহমান, পুর্ব তিমিরপুর গ্রামের আলী হোসেনের পুত্র আতাউর রহমান শামীম। এদের মধ্যে নুরুল আমিন, আতা
উর রহমান এবং ওসমান মিয়াকে ভ্রাম্যমান আদলাতে হাজির করলে নবীগঞ্জ উপজেলার দায়িত্বপ্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট গোলাম মোস্তফা মুন্না তাদেরকে ১ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করেন।

বিভিন্ন মামলার আসামী বাকী ১৮ জনকে বৃহস্পতিবার (২৭ ডিসেম্বর) সকালে কোর্টে প্রেরণ করা হবে বলে জানিয়ে নবীগঞ্জ থানার ওসি ইকবাল হোসেন বলেন, আটককৃতদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা রয়েছে।

ড.রেজা কিবরিয়া জানান, নির্বাচনী প্রচারণার নবীগঞ্জ উপজেলার ১নং পশ্চিম বড় ভাকৈর ইউপির বিভিন্ন স্থানে প্রচারণা করে আসার পথে কাজীর বাজার নামক স্থানে পুলিশ ড. রেজা কিবরিয়ার গাড়ি বহর ঘেরাও করে। এ সময় অসংখ্য পুলিশ চতুর্দিক ঘেরাও করে ৩২ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করে। ড. রেজা কিবরিয়া দাবি করেন এ সময় তাদের বেশ কয়েকটি গাড়ি ও মোটর সাইকেল ভাংচুর করা হয়।

ড.রেজা কিবরিয়া অভিযোগ করে বলেন, নির্বাচনী প্রচারণা থেকে ফেরার পথে পুলিশ আমাদের গাড়ি বহর আটক করে গ্রেফতার অভিযান চালায়। আমার গাড়ি থেকে যুবদল ও ছাত্রদলের কর্মীদের ধরে নিয়ে যায়।

নবীগঞ্জ থানা অফিসার ইনচার্জ ইকবাল হোসেন জানান, সুনির্দিষ্ট মামলায় ও নির্বাচনী আচরণ বিধি লঙ্গনের জন্য রেজা কিবরিয়ার গাড়ি বহরের ২১ জনকে গ্রেফতার করা হয়।