আশুলিয়ায় কবির সরকারসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

শনিবার, ডিসেম্বর ২২, ২০১৮

জাহিন সিংহ, সাভার থেকে : আশুলিয়ায় আওয়ামী লীগ প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণার সময় এক আওয়ামী লীগ নেতার মাথা ফাটিয়ে দেয়ার ঘটনায় আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহবায়ক কবির হোসেন সরকারসহ ১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা (নং-৫০) হয়েছে। মামলায় ১০ নেতাকর্মীর নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৪/৫ জনের নাম রয়েছে।

মামলার বাদি আহত মুছার বড় ভাই মহিবুর রহমান। তিনি আশুলিয়া থানায় শনিবার সকালে মামলাটি দায়ের করেন। এরআগে এ ঘটনায় শুক্রবার সন্ধ্যায় নয়ারহাট এলাকা থেকে পাথালিয়া ইউনিয় যুবলীগের আহ্বায়ক সুমন পন্ডিতকে আটক করে পুলিশ।

মামলায় এজাহার নামীয় আসামীরা হলো-আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকার, ইয়ারপুর ইউপি যুবলীগের সভাপতি নুরুল আমিন, যুবলীগ নেতা মাসুদ সরকার, ইয়ারপুর ইউপি যুবলীগ যুগ্ম সম্পাদক সোহেল মোল্লা, যুবলীগ নেতা কামরুল ইসলাম দেওয়ান, আবুল কালাম, আমজাদ পালোয়ান, পাথালিয়া ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি সুমন ওরফে পন্ডিত, যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলম বেপারী ও জসিম মোল্লাসহ অজ্ঞাতনামা ৪/৫ জন।

এ ব্যাপারে মামলার বাদি মহিবুর রহমান এজাহারে আরও উল্লেখ করে বলেন, তার ছোট ভাই মুছা ও আনোয়ারসহ তারা কয়েকজন ঘোষবাগ হয়ে নরসিংহপুর যাচ্ছিলেন। এসময় যুবলীগ নেতা কবির হোসেনের নির্দেশে নুরুল আমিন এর নেতৃত্বে মামলায় উল্লেখিতরা সহ অজ্ঞাতনামারা তাদের পথের গতিরোধ করে লোহার রড ও লাঠিসোটা নিয়ে তাদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে। এতে তার ছোট ভাই মুছার মাথায় আঘাত প্রাপ্ত হন এবং রক্তাক্ত জখম হন।

এসময় তারা আনোয়ার কে বেদম লাঠিপেটা ও হাতুরি পেটা করে শরীরের বিভিন্ন স্থানে নীলা ফুলা জখম করে। এছাড়াও তাদের সহকর্মীরা লাঠি পেটায় আহত হন। এসময় হামলাকারিরা মুছার পকেটে থাকা একটি আইফোন যার মূল্য ১ লাখ ১৫ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়।

পরে স্থানীয়দের সহায়তায় তাদেরকে উদ্ধার করে রাজধানীর উত্তরা ক্রিসেন্ট হাসপাতালে চিকিৎসার জন্যে ভর্তি করেন। সেখানে তারা চিকিৎসাধীন রয়েছেন। যাওয়ারা মূহুর্তে হামলাকারিরা তাদের প্রাণনাশেরও হুমকি প্রদর্শন করেছে বলেও অভিযোগ করেন।

স্থানীয়রা জানায়, শুক্রবার দুপুর দু’টারদিকে আশুলিয়ার সরকার মার্কেট এলাকায় নির্বাচনী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ও বর্তমান সাংসদ ডা. এনামুর রহমান। এসময় তার সাথে আশুলিয়ার যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের বিভিন্ন নেতাকর্মীরা অংশগ্রহণ করেন।

এ অবস্থায় দুপুর ১২টারদিকে সরকার মার্কেট এলাকায় আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির সরকারের লোকজনের সাথে ইয়ারপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মোশারফ হোসেন মুসার লোকজনের বাকবিতন্ডতা হয়।

পরে সেখান থেকে প্রচারণা শেষে ঘোষবাগের উদ্দেশ্যে রওনা দেয় নেতাকর্মীরা। ঘোষবাগ এলাকায় পৌঁছে গাড়ি থেকে নামার সাথে সাথেই আগে থেকে ওৎপেতে থাকা যুবলীগ নেতা কবির সরকারের লোকজন তার উপর হামলা চালায়।

এসময় আওয়ামী লীগ নেতার মাথা ফাটিয়ে দেয় তারা। এ ঘটনায় আনোয়ার নামের আরো এক ব্যক্তি আহত হয়। পরে তাদেরকে উদ্ধার করে উত্তরার একটি হাসপাতালে ভর্তি কর হয়েছে।

আশুলিয়া থানার ওসি (তদন্ত) জাভেদ মাসুদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। তদন্ত সাপেক্ষে এবং বাদির অভিযোগ প্রাপ্ত হয়ে মামলাটি গ্রহণ করেছেন। আসামীদের ধরতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন বলেও তিনি জানান।