এবার ইলিয়াসপত্নী লুনার জন্য কাঁদছেন বিএনপি নেতারা

বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ২০, ২০১৮

ঢাকা : আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে (বিশ্বনাথ-ওসমানীনগর) বিএনপির চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলীর স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়ন স্থগিত হওয়ায় বিশ্বনাথ বিএনপি পরিবারের পাশাপাশি এলাকার সাধারণ মানুষও তার জন্য নিরবে চোখের জল ফেলছেন।

আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-২ (ওসমানীনগর-বিশ্বনাথ) আসনে বিএনপির মনোনীত প্রার্থী লুনার মনোনয়ন স্থগিত হওয়ায় বিএনপির পাশাপাশি দুই উপজেলার এলাকার সাধারণ মানুষও তার জন্য নীরবে চোখের জল ফেলছেন।

মনোনয়ন দাখিলের পর থেকে দুই উপজেলায় যেখানে বিএনপি নেতারা ভোটের মাঠে ছিলেন সরব, সেখানে এখন তারা নীরব নিস্তব্ধ হয়ে পড়েছেন।

গত মঙ্গলবার হাইকোর্টের আপিল বিভাগে লুনার মনোনয়ন স্থগিতের পর থেকে ভোটের মাঠে এখন আর ধানের শীষের স্লোগান, প্রাচরণা, মাইকিংয়ের শব্দ শোনা যাচ্ছে না।

বিএনপি নেতারা প্রচার মাঠ ছেড়ে এখন ঘরে বসে অলস সময় কাটাচ্ছেন। তারপরও আপিল রিভিউয়ের মাধ্যমে লুনার প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার আশায় উচ্চ আদালতের দিকে চেয়ে আছেন বিএনপি নেতাকর্মীরা।

নিখোঁজ বিএনপি নেতা ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদীর লুনার মনোনয়নপত্র স্থগিত করে হাইকোর্টের দেয়া আদেশ বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ। গত মঙ্গলবার হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে তাহসিনা রুশদীর লুনার করা আবেদনের শুনানি নিয়ে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন সাত বিচারপতির আপিল বেঞ্চ ‘নো অর্ডার’ আদেশ দেন। ফলে তিনি আর নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারছেন না। এমন খবরে বিএনপি নেতাকর্মীর মধ্যে হতাশা বিরাজ করে।

এদিকে গত মঙ্গলবার রাতে চেয়ারপারসনের গুলশান কার্যালয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে ঢাকা ইউনাইডেট হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন ইলিয়াসপত্নী লুনা।

সিলেট জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও বিশ্বনাথ উপজেলা চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরী ও বিশ্বনাথ উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক কবির হোসেন ধলা মিয়া বলেন, কান্না ছাড়া আমাদের আর কিছু নেই। আমাদের নেত্রী লুনার প্রার্থিতা স্থগিতের বিষয় নেতাকর্মীর পাশাপাশি স্থানীয় লোকজন মেনে নিতে পারছে না। ষড়যন্ত্রমূলকভাবে লুনার প্রার্থিতা স্থগিত করা হয়েছে। তারপরও নেতাকর্মীরা লুনার প্রার্থিতা ফিরে পাওয়ার আশায় রয়েছেন।

ওসমানীনগর উপজেলা চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মইনুল হক চৌধুরী ও উপজেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক চেয়ারম্যান এসটিএম ফখর উদ্দিন বলেন, আমাদের প্রাণপ্রিয় নেতা ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর নেতাকর্মীরা কান্নায় ভেঙে পড়েন। এবার তার স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনার প্রার্থিতা স্থগিত হওয়ায় বিএনপির নেতাকর্মীর পাশাপাশি এলাকার সাধারণ ভোটাররাও নীরবে কাঁদছেন।

উল্লেখ্য, ২০১২ সালের ১৭ এপ্রিল ঢাকা বনানী থেকে নিখোঁজ হন সিলেট-২ আসনের সাবেক এমপি ও বিএনপি নেতা ইলিয়াস আলী ও তার গাড়িচালক আনসার আলী।

ইলিয়াস নিখোঁজের খবর তার নির্বাচনী এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে তখন দলীয় নেতাকর্মীর সঙ্গে এলাকার সাধারণ মানুষও কান্নায় ভেঙে পড়েন। কিন্তু আজও তার কোনো সন্ধান মেলেনি ইলিয়াস আলীর।এখনও তার ফিরে আসার অপেক্ষার প্রহর গুনছেন বিএনপি নেতারা।

এদিকে ইলিয়াস আলী নিখোঁজের পর তার নির্বাচনী এলাকায় বিএনপিকে আরও সুসংগঠিত করতে হাল ধরেন তার স্ত্রী তাহসিনা রুশদীর লুনা।

দলীয় নেতাকর্মীরা ইলিয়াসের অবর্তমানে তার স্ত্রী লুনাকে নিয়ে তারা অনেক স্বপ্ন দেখছিলেন। আসন্ন নির্বাচনে সিলেট-২ আসনে লুনাই হবেন এমপি, এমন মনোভাব দলীয় নেতাকর্মীদের মাঝে দেখা দিয়েছিল। দলীয় প্রতীক পাওয়ার পরপরই লুনা নির্বাচনী প্রচারে মাঠে নামেন। ভোটারদের ব্যাপক সাড়াও পান তিনি।

প্রচারণায় অনেকটা এগিয়ে ছিলেন তিনি। কিন্তু তার প্রার্থিতা স্থগিতের কারণে নেতাকর্মীদের স্বপ্ন ধূলিসাৎ হয়ে যায়। লুনার প্রার্থিতা স্থগিত হওয়ায় দলীয় নেতাকর্মীরা নীরবে চোখের জল ঝরাচ্ছেন।