‘দরিদ্র মানুষের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালু করা হবে’

মঙ্গলবার, ডিসেম্বর ১৮, ২০১৮

ঢাকা : ‘সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় বাংলাদেশ’ এই স্লোগানের মধ্য দিয়ে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ তাদের ইশতেহার ঘোষণা শুরু করেছে।

আজ মঙ্গলবার (১৮ ডিসেম্বর) সকাল ১০টায় প্যান প্যাসিফিক সোনারগাঁও হোটেলে ইশতেহারের বিস্তারিত তুলে ধরছেন দলটির সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, শিক্ষক, প্রকৌশলী, বুদ্ধিজীবী, তরুণ সমাজের প্রতিনিধি, ঢাকায় নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও কূটনীতিক, দেশি-বিদেশি সাংবাদিকসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ উপস্থিত রয়েছেন।

জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দলীয় ইশতেহার জাতির সামনে উপস্থাপন করা হচ্ছে। অনুষ্ঠানে মাল্টিমিডিয়া প্রজেকশনের ব্যবস্থা রয়েছে। অনুষ্ঠানে একটি ছোট ডকুমেন্টারি উপস্থাপন করা হচ্ছে।

এ সময় শেখ হাসিনা বলেন, গ্রামে দরিদ্র মানুষের জন্য রেশনিং ব্যবস্থা চালু করা হবে। প্রতিটি গ্রাম হবে শহরের ন্যায় আধুনিক।

আওয়ামী লীগের ইশতেহারে দুটি বিষয়ে বিশেষ জোর দেয়া হয়েছে। প্রথমত, ‘আমার গ্রাম-আমার শহর’ শিরোনামে অঙ্গীকারে প্রতিটি গ্রামে আধুনিক নগর সুবিধা পৌঁছে দেয়ার রূপরেখা তুলে ধরা হয়েছে। দ্বিতীয়ত, তারুণ্যের শক্তি-বাংলাদেশের সমৃদ্ধি- এই শিরোনামে করা অঙ্গীকারে তরুণ ও যুবসমাজকে দক্ষ জনশক্তিতে রূপান্তর এবং কর্মসংস্থানের নিশ্চয়তার কথা বলা হয়েছে।

ইশতেহারে গণতন্ত্র, নির্বাচন ও কার্যকর সংসদ প্রতিষ্ঠার বিষয়ে আলোকপাত করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদ্যাপনে ২০২০ ও ২০২১ সালকে মুজিববর্ষ ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ।

ইশতেহারের শেষের দিকে এ বিষয়ে বিস্তারিত কর্মসূচি তুলে ধরা হয়েছে। এ ছাড়া ২০৩০ সালে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়ন, ২১০০ সাল পর্যন্ত বদ্বীপ বা ডেল্টা পরিকল্পনা এবং শেখ হাসিনার বিশ্বজনীন স্বীকৃতির বিষয়গুলো রয়েছে।

ইশতেহার প্রণয়ন কমিটির একাধিক সদস্য জানান, এবারের ইশতেহারের মূল স্লোগান হচ্ছে- ‘সমৃদ্ধির অগ্রযাত্রায় অপ্রতিরোধ্য বাংলাদেশ’। এতে ২১টি বিশেষ অঙ্গীকার করা হয়েছে।

এ ছাড়া ইশতেহারে আরও যেসব অঙ্গীকার করা হয়েছে তার মধ্যে আছে- দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ; নারীর ক্ষমতায়ন, লিঙ্গসমতা ও শিশুকল্যাণ; পুষ্টিসম্মত ও নিরাপদ খাদ্যের নিশ্চয়তা; সন্ত্রাস, সাম্প্রদায়িকতা ও জঙ্গিবাদ নির্মূল; মেগা প্রকল্পগুলো দ্রুত ও মানসম্মতভাবে বাস্তবায়ন; গণতন্ত্র ও আইনের শাসন সুদৃঢ় করা; সরকারি ও বেসরকারি বিনিয়োগ বৃদ্ধি; দারিদ্র্য নির্মূল; সর্বস্তরে শিক্ষার মান বৃদ্ধি; নিরাপদ সড়কের নিশ্চয়তা; প্রবীণ কল্যাণ কর্মসূচি।

ইশতেহারে শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন (২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত) সরকারের সময়টাকে সংকট উত্তরণ ও দিনবদলের যাত্রা হিসেবে তুলে ধরা হয়েছে। বর্তমান শাসনামলকে উন্নয়ন ও সমৃদ্ধির পথে বাংলাদেশকে বিশ্বের বিস্ময় হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে। এরপর প্রতিটি মন্ত্রণালয় ও খাতের বিষয়ে সুনির্দিষ্ট অর্জন এবং ভবিষ্যতে কী করা হবে, সে বিষয়ে বিস্তারিত বর্ণনা দেয়া হয়েছে।