রাত জাগলে অফিস করবেন যেভাবে

সোমবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮

লাইফস্টাইল ডেস্ক : কর্মব্যস্ত জীবনে মাঝে মাঝে কাজের জন্যই রাত জাগতে হয়। আবার কখনো বা পরিস্থিতির কারণে রাত জাগতে বাধ্য হন অনেকেই। কেউ বা পারিবারিক কোনো অনুষ্ঠানে গিয়ে রাত জাগেন। কিন্তু পরের দিন কীভাবে অফিস করবেন চিন্তায় আছেন?

মাঝেমধ্যে এক-দুই রাত জাগা তেমন কোনো ক্ষতির কিছু না। কিন্তু তার প্রভাব পড়ে পরের দিনের অফিসের উপর। যার কারণে সারা দিন থাকে ঘুমঘুম ভাব, মেজাজ খারাপ থাকে। কিন্তু রাতের পর রাত জাগার এর বিপদ থেকে বাঁচতে কিছু বিষয় অবশ্যই মেনে চলতে হবে।

রাত জাগলে এমনিতেই একটু পেটে সমস্যা হতে পারে। তাই কম তেল–মসলায় রান্না করা ঘরোয়া খাবার খান।

রাত জাগলে অনেকেই মদ ও টুকটাক ভাজা পোড়া খান। এগুলো একেবারেই করবেন না। কারণ হ্যাং ওভার আর বদহজমের জন্য পরের দিনের কাজকর্ম নষ্ট হতে পারে। এছাড়াও হতে পারে ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপের মত অসুখ।

যে কারণে রাত জাগছেন, তা শেষ হয়ে যাওয়া মাত্রই শুয়ে পড়ুন। তার আগে কিছুটা সময় খোলা বাতাসে হেঁটে নিতে পারেন।

বেলা করে ওঠার সুযোগ না থাকলে দুপুরে একটু ঘুমানো উচিত। অফিসে ১০–১৫ মিনিট ঘুমিয়ে নিন। আর সে সুযোগ না থাকলে গাড়িতে যাতায়াতের পথে একটু ঘুমিয়ে নিন।

প্রচুর চা–কফি ও সিগারেট খেয়ে ঘুম তাড়ালে তা শরীরে খুব ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। তাই এটি এড়িয়ে চলুন।

মাসখানেক ধরে টানা রাত জাগলে বদহজম, কোষ্ঠকাঠিন্যের প্রকোপ বাড়ে তাই ফাইবারসমৃদ্ধ হালকা সুষম খাবার খান।

ঘুম কম হলে দুশ্চিন্তাপ্রবণ মানুষরা একটু খিটখিটে হয়ে পড়েন। ঘুম বাড়িয়ে সে সমস্যা কমাতে না পারলে কথাবার্তা কম বলুন, যাতে বদমেজাজের বহিঃপ্রকাশে সম্পর্ক ও অফিসের কাজ নষ্ট না হয়।

মৃগী রোগ থাকলে মাঝেমধ্যে একটু ঘুমিয়ে না নিলে অফিসে হঠাৎ অ্যাটাক হয়ে যেতে পারে।

রাতে না ঘুমালে মিষ্টি নয় বরং অল্প করে শুকনো ফল, বাদাম বা টাটকা ফলের রস খান। এতে ক্যালোরিও বেশি আর তা পুষ্টিকরও। সারা দিনে অফিসে ক্লান্তি কমাতে ও পুষ্টি জোগাতে এর ভূমিকা অনেক।