‘চাকরিতে বয়সসীমা থাকবে না, বেকাররা পাবে ভাতা’

সোমবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৮

ঢাকা : সরকারি চাকরিতে বয়সসীমা না রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়ে ইশতেহার ঘোষণা করেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। ইশতেহারে ইন্টারনেটের দাম ও বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে ফ্রি ওয়াইফাইয়ের ব্যবস্থা করার ঘোষণা করা হয়েছে। ত্রিশোর্ধ শিক্ষিত বেকারদের ভাতা দিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করা হবে।

সোমবার (১৭ ডিসেম্বর) হোটেল পূর্বাণী ইন্টারন্যাশনালে সংবাদ সম্মেলনে লিখিত ইশতেহারের বিস্তারিত তুলে ধরেন ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা ও নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না।

এসময় উপস্থিত ছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষনেতা ও গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী প্রমুখ।

কর্মসংস্থান এবং শিক্ষা নিয়ে ইশতেহারে বলা হয়েছে-

>> পুলিশ এবং সামরিক বাহিনী ব্যতীত সরকারি চাকরিতে প্রবেশের জন্য কোনো বয়সসীমা থাকবে না

>> সরকারি চাকরিতে শুধুমাত্র অনগ্রসর জনগোষ্ঠী এবং প্রতিবন্ধীদের জন্য কোটা ছাড়া আর কোনো কোটা থাকবে না।

>> ত্রিশোর্ধ শিক্ষিত বেকারদের জন্য বেকার ভাতা চালু করার উদ্দেশ্যে রাষ্ট্রীয় সক্ষমতা পরীক্ষা করে বাস্তবায়ন করার জন্য একটি কমিশন গঠন করা হবে।

>> আগামী ৩ বছরের মধ্যে সব সরকারি শূন্যপদে নিয়োগ সম্পন্ন করা হবে। ব্যাপকসংখ্যক নন-গ্র্যাজুয়েট কর্মসংস্থান হবে কৃষি উৎপাদন এবং কৃষি বিপণন সমবায়।

>> দেশে কাজ করা ওয়ার্ক পারমিটবিহীন অবৈধ সকল বিদেশি নাগরিকদের চাকরি বন্ধ করা হবে।

>> শিক্ষিত বয়োবৃদ্ধদের জন্য ন্যূনতম ভাতা রেখে অবৈতনিক খণ্ডকালীন কর্মসংস্থান করা হবে।

>> পিএসসি এবং জেএসসি পরীক্ষা বাতিল করা হবে। কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জন্য খেলাধুলা ও বিনোদনের ব্যবস্থা করা হবে।

>> সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে সমন্বিত ভর্তি পরীক্ষা ব্যবস্থা করা হবে।

>> মোবাইল ইন্টারনেট খরচ অর্ধেকে নামিয়ে আনা হবে। দেশের বিভিন্ন গণজমায়েতের স্থান ও গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ফ্রি ওয়াইফাই এর ব্যবস্থা করা হবে।

>> প্রথম বছর থেকেই ডাকসুসহ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়মিত ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠান নিশ্চিত করা হবে।

>> বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজগুলোতে সরকারি শিক্ষাব্যয় সুনির্দিষ্ট করা হবে।

>> মাদরাসার শিক্ষার্থীদের কারিগরি শিক্ষা দিয়ে বিদেশে কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হবে। কর্মসংস্থানকে প্রাধান্য দিয়ে শিক্ষাব্যবস্থার আমূল সংস্কারের জন্য কমিশন গঠন করা হবে।