একটানা বসেও যেভাবে কমাবেন হাড়ের ব্যথা!

বৃহস্পতিবার, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

স্বাস্থ্য ডেস্ক : কর্মব্যস্ত জীবনের বেশির ভাগ সময়ই কেটে যায় অফিসে একটানা বসে কাজ করতে করতে। সকালে অফিসে এসে চেয়ারে বসা থেকে রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগ পর্যন্ত টিভি দেখা বা ঘরোয়া আড্ডায় বসে থাকার বিরাম নেই। তার উপর শীতের ঠাণ্ডায় ঘন ঘন বাইরে যেতেও চান না অনেকেই। আবার গরমে ঘর ও অফিসের এসি ছেড়ে বাইরে যাওয়া হয় না।

কিন্তু এই দীর্ঘ সময় বসে থাকার কারণেই শরীরে বিভিন্ন ব্যথার শুরু হয়। অনেক সময় বসে থাকলে শরীরের বেশির ভাগ ভার কোমরে এসে পড়ে। যার কারণে ভারের চাপে ক্লান্ত হয় পেশি এবং শুরু হয় ব্যথা।

আর বসে থাকার ফলে ওজন বেড়ে যাওয়ায় সেই বাড়তি চাপও গিয়ে পড়ে হাঁটু ও কোমরে। কিন্তু নিয়ম না মেনে ভুল জীবনযাত্রায় অভ্যস্ত হলে হাড়ের ক্ষতি হতে শুরু হবে।

যেসব কারণে এই সমস্যা বাড়ে

গায়ে পর্যাপ্ত রোদ না লাগলে ভিটামিন ডি–র অভাব হয়ে ব্যথা বাড়তে পারে।

দিনের শেষে আরাম চেয়ারে গা এলিয়ে বসে টিভি দেখলে কোমর–হাঁটু–ঘাড়ের ক্ষতি হয়।

কাজ করার সময়ে টেবিলের এক পাশে মনিটর আর অন্য পাশে কিবোর্ড থাকলে ঘাড়ে সমস্যা হয়।

কিবোর্ডে আঙুল চালাতে চালাতে আঙুল ব্যথা হয়, হাতের পেশি ব্যথা ও কনুই বা কাঁধ ব্যথাও হয়।

সাধারণ চেয়ারে বসে কাজ করলে ভাল সাপোর্ট থাকে না বলে বাড়ে কোমর ব্যথা।

চেয়ার–টেবিলের উচ্চতা ঠিক না থাকলে ঘাড়ে ও কোমরে সমস্যা হতে পারে।

হাড়ের ক্যালসিয়াম কমায় ধূমপান, মদ, ফাস্টফুড ও কোমল পানীয়।

সমাধান

টানা ঘণ্টা খানেক কাজের পর ৫–৭ মিনিট ছুটি নিন। একটু স্ট্রেচিং করুন বা ঘুরে আসুন। বসার ধরন মাঝে মাঝে বদলান ও কোমরের কাছে কুশন রাখুন।

হাঁটু ব্যথা এড়াতে চেয়ারে বসে পা টেবিলের নীচে রাখা অবস্থায় প্রতি ঘণ্টায় অন্তত এক মিনিট থাইয়ের পেশি শক্ত ও ঢিলে করুন।

কাজ করতে করতে ঘাড় শক্ত লাগলে চেয়ারে মাথা এলিয়ে চোখ বন্ধ করে থাকুন কয়েক মিনিট। মাথা ডানে ও বামে ঘোরান দুই–চার বার।

আঙুল ও হাতের পেশির ব্যথা করলে মাঝে মাঝে বিশ্রাম দিন। অবসর পেলে হাত মুঠো করুন ও খুলুন। হাত মুঠো করে কবজিকে বিভিন্ন দিকে ঘোরান।

বাড়ি ফিরে যা করতে পারেন

কবজি ব্যথা হলে গরম পানিতে হাত ডুবিয়ে মুঠো করুন ও ছাড়ুন।

ব্যথা কমাতে চাইলে পাতলা তুলার তোশকে প্রায় ২ ইঞ্চি মতো উচ্চতার তুলার বালিশে ঘুমান। ৬ মাস–এক বছর অন্তর বালিশ বদলান।

টিভি এমন জায়গায় রাখুন যাতে পুরোপুরি শুয়ে দেখা যায়।

প্রতিদিন ২০–৩০ মিনিট হাঁটুন ও মিনিট ২০ হাঁটু, কোমর, ঘাড়, কাঁধ ও হাতের ব্যায়াম করুন।

কী খাবেন, কী খাবেন না

ভিটামিন ডি ও ক্যালসিয়ামসমৃদ্ধ খাবার যেমন, ডিম, দুধ, দই, ছানা, চিজ, মাংস, ছোট মাছ, খেজুর, নাসপাতির সঙ্গে পর্যাপ্ত ভাত, রুটি, ডাল, শাকসবজি খান।

মধ্যবয়সী নারীরা দিনে একটা করে ক্যালসিয়াম ট্যাবলেট খাবেন।

চা–কফি–কোমল পানীয় কম খান ও প্রচুর পানি খান শরীর বুঝে।
মদ ও সিগারেট খাওয়া কমাতে হবে।