অবাধ মেলামেশাতেই ধর্ষণ!

রবিবার, নভেম্বর ১৮, ২০১৮

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : ধর্ষণের দায়ভার ফের মেয়েদের ঘাড়েই চাপালেন মুখ্যমন্ত্রী। হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী মনোহরলাল খট্টর বলেন, ৯০ শতাংশ ধর্ষণের ঘটনার জন্য মেয়েরাই দায়ী হয়। তার এই মন্তব্যে বিতর্কের ঝড় ওঠে। রাজ্যের প্রশাসনিক প্রধান হয়ে এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন মন্তব্য করে তিনি মহিলাদের সম্মান ক্ষুন্ন করেছেন বলে অভিযোগ উঠে পড়ে ফের।

৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে ধর্ষণে দায়ী মেয়েরাই বৃহস্পতিবার এক জনসভায় হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী বলেন, এই যে এত ধর্ষণ ও শ্লীলতাহানির ঘটনা ঘটছে, তার ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ ক্ষেত্রে মেয়েরাই দায়ী। প্রায় প্রতি ক্ষেত্রে চেনা পরিচিতরা এই ধরনের ঘটনায় যুক্ত। মেয়েরা ছেলের সঙ্গে পরিচয় হওয়ার তার সঙ্গে যেমন-তেমনভাবে ঘুরে বেড়ায় বলেই এ ধরনের ঘটনা ঘটে।

হরিয়ানার মুখ্যমন্ত্রী আরও অভিযোগ করেন, বয়ফ্রেন্ডদের সঙ্গে দীর্ঘদিন ঘোরাফেরার পর কোনও তুচ্ছ কারণ নিয়ে বনিবনা না হলেই ধর্ষণের অভিযোগ করে বসে মেয়েরা। এমনকী ছেলেটির বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে এফআইআর পর্যন্ত দায়ের করে। তার এই মন্তব্য নিয়েই ঝড় বইতে শুরু করে সোশ্যাল মিডিয়ায়।

মুখ্যমন্ত্রীর মন্তব্যের পর কংগ্রেস জানিয়েছে, এটা হল খট্টর সরকারের মহিলা বিরোধী মনোভাবের বহিঃপ্রকাশ। কংগ্রেসের মুখপাত্র রণদীপ সুরজেওয়াল টুইট করে মনোহরলাল খট্টরের গায়ে ‘মহিলা বিরোধী` তকমা সেঁটে দেন। তিনি বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর এই মন্তব্যের পর ক্ষমা চাওয়া উচিত।

কংগ্রেসের টুইটে বিদ্ধ মুখ্যমন্ত্রী রণদীপ সুরজেওয়ালে টুইটে লেখেন- হরিয়ানা সরকার ধর্ষণ ও গণধর্ষণের মতো ঘটনা রোধ করতে ব্যর্থ। তারপর এমন মন্তব্য। তার অবিলম্বে ক্ষমা চাওয়া উচিত। এর আগেও তিনি ধর্ষণের জন্য মহিলাদের কাঠগড়ায় তুলেছিলেন। ধর্ষণের মতো ঘটনা রোধ করতে তিনি মেয়েদের শালীনতা বজায় রেখে পোশাক পরার পরামর্শ দিয়েছিলেন।

সূত্র- ওয়ানইন্ডিয়া