ব্যারিস্টার মঈনুলের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

রবিবার, অক্টোবর ২১, ২০১৮

ঢাকা : সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ব্যারিস্টার মঈনুল আহমেদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন আদালাত।

বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তরের টক শো’তে নারী সাংবাদিককে ‘চরিত্রহীন’ বলায় ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনের বিরুদ্ধে করা মানহানী মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছে জামালপুরের একটি আদালত।

এর আগে বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল একাত্তরের টক শো’তে নারী সাংবাদিককে ‘চরিত্রহীন’ বলায় ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেনকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে এক সপ্তাহের আল্টিমেটাম দিয়েছিলেন মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতারা।

শনিবার বিকেলে শাহবাগ প্রজন্ম চত্বরে আয়োজিত মানববন্ধন থেকে এ আল্টিমেটাম দেয়া হয়। মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন গৌরব’৭১ এই মানববন্ধনের আয়োজন করে।

মানববন্ধনে গৌরব’৭১ এর সাধারণ সম্পাদক এফ এম শাহীন বলেন, টিভির টকশো’তে যেভাবে ব্যারিস্টার মঈনুল একজন নারীকে অশালীনভাবে অপমান করেছেন, তার জন্য তাকে প্রকাশ্যে জনগণের সামনে ক্ষমা চাইতে হবে। আর এ ক্ষমা চাওয়ার জন্য আমরা এক সপ্তাহের সময় বেঁধে দিচ্ছি। অর্থাৎ আগামী শুক্রবার পর্যন্ত সময় বেঁধে দিলাম। এ সময়ের মধ্যে তিনি ক্ষমা না চাইলে আমরা তার বাড়ি ঘেরাও করবো। এমনকি এ দাবিতে সারাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের তরুণরা রাজপথে আন্দোলন গড়ে তুলবে।

উল্লেখ্য, গত ১৬ অক্টোবর মধ্যরাতে একাত্তর টেলিভিশনের নিয়মিত আয়োজন একাত্তর জার্নালে রাজনৈতিক সংবাদের বিশ্লেষণ চলছিল। অনুষ্ঠান পরিচালনায় ছিলেন উপস্থাপিকা মিথিলা ফারজানা। এতে অতিথি ছিলেন মাসুদা ভাট্টি ও সাখাওয়াত হোসেন সায়ন্ত। আলোচনায় স্টুডিওর বাইরে থেকে যুক্ত হন ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন।

আলোচনার ফাঁকে মাসুদা ভাট্টির প্রশ্ন ছিল— সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে একটি আলোচনা চলছে যে ব্যারিস্টার মঈনুল হোসেন ঐক্যফ্রন্টে জামায়াতের প্রতিনিধিত্ব করছেন। এর জবাবে ব্যারিস্টার মইনুল বলেন, ‘আপনার দুঃসাহসের জন্য আপনাকে ধন্যবাদ দিচ্ছি। আপনি চরিত্রহীন বলে আমি মনে করতে চাই।’

এ ঘটনায় মঈনুলের বিরুদ্ধে চারিদিকে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ওই ঘটনার প্রতিবাদেই আজকের এই কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।